নতুন খবরবিশেষ

চিনকে উচিত শিক্ষা দিতে পাকিস্তানকে ঋণ দেবে না আইএমএফ, চিন্তায় পাকিস্তান!

এক সময় পাকিস্তানের সব থেকে কাছের বন্ধু চীন এবার পাকিস্তানকে নানান রকম ফাঁদে ফেলে ঋণের জালে জর্জরিত করে দিয়েছে। এই মুহূর্তে পুরোপুরি ভাবে ঋণের জালে জর্জরিত হয়ে পড়েছে পাকিস্তান। আর সেই ঋণ জাল থেকে নিজেদের বের করে আনার জন্য ৮ মিলিয়ন ডলার ঋণ হিসাবে ইন্টারন্যাশনাল মনিটরি ফান্ডের কাছে চেয়েছে পাকিস্তান।কিন্তু পাকিস্তান সরকারকে এই ভাবেই ঋণ দেওয়াতে চরমভাবে আপত্তি জানিয়েছেন মার্কিন প্রতিনিধিরা। কারণ তারা দাবি করেছেন যে এই চীন এর আগেও বহু দেশ কে এই ভাবে ঋনের জালে জড়িয়ে তাদের কাছ থেকে অনেক টাকা আত্মসাৎ করেছে।

তাই এইভাবে চীনের টাকা পরিশোধের জন্য কোন দেশকে ঋণ দেওয়া যাবে না বলে তাদের মতামত।ব্র্যাড শের্মান যিনি ডেমোক্র্যাটিক কংগ্রেস প্রতিনিধি তিনি দাবি করেছেন যে, আইএমএফ এর যে কোন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে একমাত্র বাধা সৃষ্টি করার ক্ষমতা রয়েছে শুধুমাত্র মার্কিন প্রতিনিধিদের। তারা চাইলেই আইএমএফ এর যেকোনো পদক্ষেপ আটকে দিতে পারেন। আর উনার মুখে এই খবর পাওয়ার পরই পাকিস্তানের ঘুম উড়ে গিয়েছে। কারণ আমেরিকা যখন পাকিস্তানের উপর থেকে ত্রাণের পরিমাণ কমিয়ে দিয়েছিলেন তখন এই ব্র্যাড শের্মান পাকিস্তানের হয়ে কথা বলেছিলেন।

আর এই দিন তিনি পরিষ্কার হবে জানিয়ে দেন যে আমেরিকা, পাকিস্তানের উপর যে ত্রাণের টাকাটি কমিয়ে দিয়েছেন সেই টাকা আর কোনো ভাবেই বাড়ানো সম্ভব নয়। এবং সেই সাথে তিনি এটিও জানিয়ে দেন যে পাকিস্তানকে এই রকমভাবে চীনের টাকা পরিশোধের জন্য কোন রকম ঋণ দেওয়া আইনত ভাবে সম্ভব নয়। কারণ আমেরিকা প্রতিনিধিরা মনে করছেন যে চীন যেভাবে দিনের পর দিন অনেক দেশ কে ঋণের জালে জর্জরিত করে তাদের কাছ থেকে প্রচুর পরিমাণে টাকা আত্মসাৎ করছে। তাতে চীন যদি তাদের টাকা ফেরৎ না পায় সেটাই হবে তাদের উচিৎ শিক্ষা।

এই প্রসঙ্গে তিনি আফ্রিকা এবং পশ্চিমী দেশগুলির অর্থাৎ শ্রীলঙ্কা সহ অন্যান্য দেশ গুলির কথা তুলে ধরেছেন। তিনি জানিয়েছেন যে চীনের টাকা মেটানোর জন্য কোন রকম টাকা দেওয়া হবে না পশ্চিম এশিয়ার দেশ গুলিকে। কারণ এর ফলে দিনের পর দিন চীন পেয়ে বসছে এবং ক্ষুদ্রদেশ গুলির আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে। তাই এইদিন পাকিস্তান কে স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দেওয়া হয় যে, কোনোরূপ আর্থিক সাহায্য তারা পাবে না। এর ফলে পাকিস্তান যেমন চাপে পড়ে গেল ঠিক তেমনই উচিৎ শিক্ষা পেল চীন।
#অগ্নিপুত্র

Related Articles

Back to top button