এখন বাড়িতে বসে খুব সহজেই বদলাতে পারবেন ভোটার কার্ডের ঠিকানা, কীভাবে করবেন জানুন বিস্তারিত

যতই আজকের দিনে আধার কার্ডের গুরুত্ব থাকুক না কেন, ভোটার আইডেন্টি কার্ডের গুরুত্ব কিন্তু আজও আমাদের জীবনে রয়েছে সমানভাবে। প্রতি পাঁচ বছর অন্তর অন্তর লোকসভা অথবা বিধানসভা ভোটের সময় এই ভোটার আইডেন্টি কার্ড কিন্তু আমাদের ভোট দেওয়ার অধিকার ঠিক করে দেয়। তাই আধার কার্ড এর পাশাপাশি এই ভোটার আইডেন্টি কার্ড আমাদের কাছে সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। একজন মানুষ যে স্থানে বহু দিন ধরে বসবাস করেন সেই স্থানে তিনি একজন ভোটার হিসেবে চিহ্নিত হয়ে যান। তাই স্থান পরিবর্তন করলে অবশ্যই উচিত ভোটার আইডেন্টি কার্ডের ঠিকানা পরিবর্তন করা।

আপনি যদি বাপের বাড়ি থেকে শ্বশুর বাড়ি চলে যান, অথবা চাকরি সূত্রে যদি পাকাপাকিভাবে আপনি অন্য কোথাও বসবাস করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে ভোটার আইডেন্টি কার্ডের ঠিকানা বদল করতে হবে। এই ঠিকানা বদল করার জন্য কি কি করা দরকার চলুন এক নজরে জেনে নেওয়া যাক।
অফলাইনে এবং অনলাইনে আপনি কিভাবে ভোটার আইডেন্টি কার্ডের ঠিকানা পাল্টে নেবেন চলুন এক নজরে জেনে নিন।
অফলাইনে ঠিকানা বদল করতে চাইলে আপনাকে যোগাযোগ করতে হবে নির্বাচনী অফিসে। সেখানে গিয়ে ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা বদল করার বিষয়টি জানিয়ে একটি ফর্ম নিতে হবে। ৮ নম্বর ফর্মটি ভালো করে পড়ে ফিলাপ করে জমা দিতে হবে। সঙ্গে জমা দিতে হবে ঠিকানা বদলের প্রমাণ হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ সমস্ত নথি।

এবার জেনে নেওয়া যাক অনলাইনে আপনি ঠিকানা বদল করবেন কিভাবে। নিজের স্মার্টফোনে ইন্টারনেট কানেকশন থাকলে গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে সার্চ বার অপশনে টাইপ করুন ভোটার হেল্পলাইন। সার্চ করলে বেশ কিছু অ্যাপ্লিকেশন আপনার মোবাইল স্ক্রীনে চলে আসবে। সেখান থেকে ভোটার হেল্পলাইন অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিন। তবে ডাউনলোড করার আগে এই অ্যাপটি ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের কিনা তা দেখে নিতে ভুলবেন না।

এবার স্মার্টফোনে ভোটার হেল্পলাইন অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর অ্যাপ থেকে আপনার ফোনের বেশ কয়েকটি ড্রাইভের এক্সেস চাইবে। এবার প্রত্যেক ক্ষেত্রে এগ্রি অপশনে ক্লিক করতে হবে আপনাকে।

এরপর ইভিপি অর্থাৎ ইলেক্টোরাল ভেরিফিকেশন পোগ্রম লেখা ট্যাবে ক্লিক করতে হবে। এই ট্যাবে ক্লিক করলেই শুরু হয়ে যাবে ভোটারের তথ্য যাচাই করার প্রক্রিয়া। প্রথমে আপনার মোবাইল নম্বর লিঙ্ক করতে হবে ভোটার আইডেন্টি কার্ডের সঙ্গে।

এবার রেজিস্টার করা মোবাইল নম্বরে আসা ওটিপি নির্দিষ্ট অংশের সাবমিট করতে হবে।

এবার এপিক নম্বরের সাহায্যে আপনার ভোটার কার্ডের তথ্য সার্চ করা হবে।
সমস্ত তথ্য পাওয়া গেলে অবশ্যই ক্লিক করতে হবে ইটস মি অপশনে।
এরপর মোবাইল স্ক্রিনে ভেসে ওঠা ইয়েস অপশনে ক্লিক করলে মোবাইল নম্বরটি সংযুক্ত হয়ে যাবে।
আপনার মোবাইলটি সংযুক্ত হয়ে গেলে ওকে অপশনে ক্লিক করে আপনার ছবিসহ ভোটার আইডেন্টি কার্ড দিয়ে আপনি দেখতে পাবেন।
এবার দেখতে পাবেন মডিফাই নামে একটি অপশন। এই অপশনে ক্লিক করলেই নিজের ঠিকানা বদলে নিতে পারবেন আপনি।
এরপর ঠিকানার প্রমাণস্বরূপ যে যে নথি প্রয়োজন সেই সমস্ত নথি পরপর দিয়ে দিন। এইভাবে খুব সহজে বাড়িতে বসে মোবাইলের মাধ্যমে আপনি ভোটার আইডেন্টি কার্ডের ঠিকানা বদলে ফেলতে পারবেন।