কেন্দ্রীয় সরকারকে সরাসরি হুমকি মেহবুবা মুফতির, বিশেষ সুবিধা কেড়ে নিলে পুরো কাশ্মীর জ্বলবে..

এবার সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারকে মেহবুবা মুফতি হুমকি পর্যন্ত দিয়ে বসলেন। ” বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নিলে জম্মু- কাশ্মীরের সাথে ভারতের সম্পর্ক ছিন্ন হয়ে যাবে ” এমন বক্তব্য এক জনসভায় তিনি দিয়ে বসলেন। আর এই বক্তব্যকে ঘিরে রাজনৈতিক মহলে এক চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যদিও বিগত কিছুদিন থেকেই সংবিধানের ৩৭০ এবং ৩৫-এ কে নিয়ে বিতর্ক চলছে , আর এটা বলা ভুল হবে না যে এই দুটি ধারা কে কেন্দ্র করে কাশ্মীর বাসীরা বিশেষ সুযোগ-সুবিধা ভোগ করে থাকেন। আর এই ধারাকে বাতিল করার জন্যই সুপ্রিম কোর্টে পেটিশন জমা পড়ে গেছে। শুধু তাই নয় এই বিতর্ক আরো বাড়ে যখন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি প্রশ্ন করেন।

আর এই সংবিধানকে জেরে অরুণ জেটলির মন্তব্য,” সংবিধানের ৩৫ এ ধারাটি জম্মু-কাশ্মীরের আর্থিক বৃদ্ধির পথে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে । এই ধারা অনুযায়ী অন্য রাজ্যের মানুষ জম্মু-কাশ্মীরের কোনো স্থাপত্যের মালিক হতে পারবে না। শুধু তাই নয়, রাজ্যেও স্থায়ীভাবে বসবাস পর্যন্ত করতে পারবে না। আর এই তর্কবিতর্কের পরেই এই পিডিপি নেত্রী মুফতি নিজের মুখ খুলে বসলেন। তার বক্তব্য , ” ৩৭০ ধারাটি ভারত ও জম্মু-কাশ্মীরের মধ্যে সংযোগকারী ব্রিজ। অর্থাৎ সেই ব্রিজ না থাকলে, কাশ্মীরের ভারতে থাকা নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। তিনি যুক্তি সহকারে বললেন, সংবিধান কালে ভারত এই ধারা অনুযায়ী কাশ্মীরকে বিশেষভাবে মর্যাদা দেয়। আর এখন সেই মর্যাদা কেড়ে নিলে কাশ্মীর কেউ ভাবতে হবে যে তারা শর্ত ছাড়া ভারতে থাকবে কিনা !

বহুদিন থেকেই কাশ্মীরের রাজনৈতিক ও বিরোধী নেতারা এই ধারা বাতিলের বিতর্কে বারবার একত্রিত হয়েছেন। আবার অন্যদিকে মুফতির সাথে ওমার আবদুল্লাহ বলেছেন , ” ৩৫ এ ধারার ওপর কোনো রকম হস্তক্ষেপ করলে তার ফল ভালো হবে না, জম্মু কাশ্মীরের অবস্থা ভবিষ্যতে অরুণাচল প্রদেশের থেকেও আরো খারাপ হবে। মুফতি আবার আরেক ধাপ এগিয়ে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন,” ৩৫ এ ধারা বাতিল হলে, 1947 সালে ভারত যা দেখেনি তা দেখবে। পুরো কাশ্মীর জ্বলবে” ।

Related Articles

Open

Close