Categories
দেশ নতুন খবর বিশেষ লাইফ স্টাইল

এবার থেকে WhatsApp-এ অর্ডার দিলে বাড়ি পৌঁছে যাবে ওষুধ, বড় পদক্ষেপ মোদি সরকারের..

দেশজুড়ে জারি রয়েছে তৃতীয় দফার লকডাউন যার জেরে একপ্রকার স্তব্ধ রয়েছে দেশের একাধিক পরিষেবা। যদিও এই মুহূর্তে প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মধ্যে নাম রাখা হয়েছে ওষুধপত্রের তবে অনেক ক্ষেত্রে এটি পেতে যথেষ্ট অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। তবে এরই মধ্যে পাওয়া গেল এক আশার আলো, যেখানে জানতে পারা গেছে কেন্দ্রীয় কেমিক্যাল এবং ফার্টিলাইজার মন্ত্রিসভার অন্তগত একাধিক প্রধানমন্ত্রী ভারতীয় জনঔষধি কেন্দ্র ই মেল এবং Whatsapp এর মাধ্যমে ওষুধের অর্ডার দেওয়া যাচ্ছে।

আর সরকারের এই নতুন পদক্ষেপটি জন সাধারণের কাছে যথেষ্ট সুবিধাজনক হবে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে এইভাবে অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার দেওয়ার ফলে বাড়িতে এসে ওষুধের ডেলিভারি দেওয়া হবে। তবে এক্ষেত্রে অর্ডার দেওয়ার আগে এর জন্য প্রয়োজন পড়বে রোগীর প্রেসক্রিপশন আপলোড করার। আর এটি আপলোড করা অত্যন্ত বাধ্যতামূলক। তবে এ ক্ষেত্রে যেহেতু লকডাউন জেরে কার্যত বন্ধ রয়েছে পরিবহন ব্যবস্থা সেই ক্ষেত্রে এভাবে অনলাইনের মাধ্যমে ওষুধের ডিলেভারি একটি যথেষ্ট সুবিধাদায়ক পদক্ষেপ। এ বিষয়ে কেন্দ্রের এক আধিকারিক জানান এরকম এক পরিস্থিতিতে নতুন প্রযুক্তির ব্যবহার করে খুব সহজেই মানুষের কাছে পৌছে দেওয়া পরিষেবা কম সময়ের মধ্যে দেওয়া যাচ্ছে। যার জেরে বিপদের মধ্যে পড়তে হবে না মানুষজনকে। আর প্রধানমন্ত্রী ভারতীয় জনৌষধি কেন্দ্র মূলত প্রধানমন্ত্রী ভারতীয় জনৌষধি পরিজজনার আওতাধীন হয়ে কাজ করবে। আর প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানতে পারা গেছে এই পরিষেবা প্রদান করতে এই মুহূর্তে 726 টি জেলাতে প্রায় 6300 টি কেন্দ্র রয়েছে সেখান থেকে এই পরিষেবা সাধারণ মানুষদেরকে দেয়া হচ্ছে।শুধু তাই নয় এক্ষেত্রে অনেক কম দামে এই ওষুধ পাওয়াতে সাধারণ মানুষেদের অনেক সুবিধাও হচ্ছে। তাছাড়া এই কাজের জন্য লাগানো হয়েছে সুদক্ষ ও প্রশিক্ষিত কর্মীদের।আর এরকম এক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে মূলত এই কারণেই যাতে লকডাউনের জেরে সাধারণ মানুষদের কোনো অসুবিধার মুখে পড়তে না হয় ওষুধ পরিষেবা কে নিয়ে। তাই বলা যেতে পারে এক্ষেত্রে এই লকডাউন এর মধ্যে এরকম এক পরিষেবা প্রদান করার ফলে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে রয়েছে সাধারণ মানুষ।