দুইয়ের বেশি সন্তান থাকলে মিলবে না সরকারি চাকরি ও সুযোগ সুবিধা, নতুন বিল আনার তোড়জোড় শুরু উত্তরপ্রদেশ সরকারের

২০১৭ সালে জন্ম নিয়ন্ত্রণ আইন খসড়া তৈরি হয়েছিল ২০২১ সালে প্রথম অসম সরকার এই খসড়াকে আইন আকারে পাস করে। ১ জানুয়ারি ২০২১ থেকে অসমের চালু হয় এই আইন। আইনে বলা হয়েছিল দুটির বেশি সন্তান থাকলে আর সরকারি চাকরি মিলবে না, শুধু সরকারি চাকরি নয় বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের এই নিয়ম লাগু হবে বলে জানানো হয়েছিল। এমনকি পুরসভা বা পঞ্চায়েত ভোটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন না তারা।

এবার অসমের পথে হাঁটতে চলেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। রবিবার বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ বিলের খসড়া প্রকাশ করতে চলেছে যোগী আদিত্যনাথ এর উত্তর প্রদেশ সরকার। তবে এখনই এই বিল রাজ্য সরকারের কাছে পেশ করা হবে না আগামী ১০ দিন এই বিল সম্পর্কে বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে জনমত সংগ্রহ করা হবে। তারপর ১৯ জুলাই বিলটিকে তুলে দেওয়া হবে রাজ্য সরকারের হাতে বলে জানা গেছে।

নতুন পদক্ষেপ শুরু করতে চলেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। এবার থেকে অসমের মতোই দুই বা তার কম সন্তান থাকলে তবেই মিলবে সরকারি প্রকল্প থেকে সরকারি চাকরি সুবিধা। ইউ জানানো হয়েছে দরিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী কোনো দম্পতি যদি একটি পুত্র সন্তান থাকে এবং তিনি বন্ধাত্বকরণ অপারেশন করিয়ে থাকেন স্ত্রীকে তাহলে এককালীন ৮০ হাজার টাকা অনুদান দেওয়া হবে সেই সমস্ত পরিবারকে। আর যদি সেই সমস্ত দম্পতির একটি কন্যা সন্তান থাকে তাহলে পেয়ে যাবেন এককালীন ১ লক্ষ টাকা।

উত্তরপ্রদেশে গত কয়েক বছর ধরে জনসংখ্যা দ্রুত গতিতে বেড়ে চলেছে। পরের বছর অর্থাৎ ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে হতে চলেছে বিধানসভা নির্বাচন। তবে এবার নির্বাচনের আগেই এই বিষয়ে পদক্ষেপ করতে চলেছে যোগী আদিত্যনাথ এর সরকার। এদিন এক বিবৃতিতে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ জানিয়েছেন ‘অশিক্ষা আর দরিদ্র জনবিস্ফোরনের প্রধান ফ্যাক্টর। কোন কোন সম্প্রদায়ের মধ্যে এ বিষয়ে সচেতনতা কম, তাদের সেই সম্প্রদায়ভিত্তিক সচেতনতা গড়ে তোলাই একান্ত প্রয়োজন’।

সরকারের এক মুখপাত্র জানান, বর্তমানে উত্তরপ্রদেশে প্রজননের হার ২.৭ শতাংশ, যা হওয়া উচিত ২.১ শতাংশ। আরো বেশ কিছু তথ্য সামনে রেখে রিপোর্ট তৈরী করে তবেই এত বড় আইন আনতে চলেছে যোগী আদিত্যনাথ এর সরকার ।