আধার কার্ডে ঠিক কত বার এই তথ্যগুলি বদল করা যাবে, না জানলে অবশ্যই জেনে নিন না হলে পড়তে পারেন বড় সমস্যায়..

বর্তমান দিনের আধার কার্ড কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আমরা সবাই জানি। দেশের সমস্ত জায়গাতে এখন মূল পরিচয় পত্র হিসেবে আধার কার্ড অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে প্রধান সমস্যা হচ্ছে আধার কার্ডের তথ্যে অনেক মানুষের ভুল থাকে। অনেকেই এই তথ্য ঠিক করার জন্য বারবার প্রচেষ্টা করে বা একবার ঠিক করার পর আবার ভুল তথ্য চলে আসে তারপর আবার ওই ব্যক্তি তা ঠিক করার চেষ্টা করে।

তবে এ বিষয়ে সাবধান বারবার আধার কার্ডের তথ্য বদল করার উপর নির্দেশিকা জারি করেছে আধার দপ্তর। এবার জেনে নিন সেই কারণ গুলি কি কি?
আধার কার্ডের তথ্য পরিবর্তন সংক্রান্ত বিষয়ে ইউনিক আইডেন্টিটি অথরিটি অফ ইন্ডিয়া বেশকিছু নির্দেশিকা জারি করেছে। যেমন নাম, জন্মতারিখ, লিঙ্গ বিষয়ক সংক্রান্ত তথ্য কতবার বদলানো যাবে তার সীমা বেঁধে দিয়েছে এই অথরিটি। অনেকেই আধার কার্ড হাতে পেয়ে দেখেন যে তার  বানান ভুল রয়েছে নামের। এর ফলে অনেক ব্যক্তি সমস্যায় পড়ে যান। এক্ষেত্রে ইউআইডিএআই জানিয়েছেন, এবার থেকে আধার কার্ডে মাত্র দুবার নাম বদল করা যাবে। আবার অনেকের আধার কার্ডের জন্ম তারিখে ভুল থাকে। এক্ষেত্রে ইউআইডিএআই জানিয়েছেন আধার কার্ডে মাত্র একবারই জন্ম তারিখ পরিবর্তন করা যাবে। এবং এক্ষেত্রে মনে রাখবেন যে, আধার কার্ড তৈরি করার সময় আপনি যে জন্মসালের উল্লেখ করেছিলেন তার সর্বাধিক তিন বছর আগে বা পরের সাল তথ্য হিসেবে বদলাতে পারবেন।

আধার কার্ড তৈরি করার সময় জন্ম তারিখ হিসেবে যে শংসাপত্র দাখিল করা হয়েছে সেটিকে গণ্য বলে মনে করা হবে। কেউ যদি জন্ম তারিখ এর শংসাপত্র দাখিল করতে না পারে তাহলে তাঁর জন্ম তারিখটি আনুমানিক হিসেবে ধরা হবে। এবং যাদের জন্ম তারিখটি আনুমানিক হিসেবে ধরা হবে তারা যদি ভবিষ্যতে তাদের জন্ম তারিখ আপডেট করতে চান তাহলে সঠিক প্রমাণ পত্র এনে জন্ম তারিখটি পরিবর্তন করতে পারবেন। জন্ম তারিখ এর মত লিঙ্গ সংক্রান্ত তথ্য পরিবর্তন আনতে চলেছে ইউআইডিএআই। এক্ষেত্রেও লিঙ্গ নিয়ে তথ্য মাত্র একবারই পরিবর্তন করা যাবে। এবার আপনাদের বলে দি কীভাবে সে কাজ হবে? এক্ষেত্রে নাম, জন্মতারিখ, লিঙ্গ পরিবর্তনের ক্ষেত্রে নাগরিককে আপডেট সেন্টারে হাজিরা দিতে হবে। এরপর যে সমস্ত নাগরিক নাম জন্ম তারিখ এবং লিঙ্গ সংক্রান্ত তথ্য বদলের নির্ধারিত সময় অতিক্রম করে গেছেন তাদেরকে আঞ্চলিক অফিসে গিয়ে আবেদন করতে হবে পুনরায় তথ্য পরিবর্তন করার জন্য।আপনি চিঠি বা ই-মেইল ([email protected]) করতে পারেন। এবং আপনার নির্ধারিত সংখ্যার পেরিয়ে যাওয়ার কারণ সেই ইমেইল বা চিঠিতে উল্লেখ করতে হবে। আবেদনপত্র গ্রহণ করার পর নাগরিককে তার ইউআরএন স্লিপ, আধার কার্ডের ডিটেলস এবং প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে হবে। নির্ধারিত সময় বেশিভাগ তথ্য প্রদানের ক্ষেত্রে আঞ্চলিক অফিসের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হিসেবে হবে। এক্ষেত্রে কোনো নাগরিকের কাছ থেকে তারা আরো অন্যান্য তথ্য প্রমাণ চাইতে পারেন। আবেদনপত্র যদি যথার্থ হয় তাহলে তার তথ্য বদলের জন্য তথ্যকেন্দ্রে তা পাঠিয়ে দেবে আঞ্চলিক অফিস।