সেভিং অ্যাকাউন্টকে জনধন অ্যাকাউন্টে পরিবর্তন করলে মিলবে একাধিক বিশেষ সুবিধা, বিস্তারিত জানতে

২০১৪ সালে ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রীর সিংহাসনে নরেন্দ্র মোদী বসার পরেই জন ধন যোজনায় অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য (Jan Dhan account) ভারতবাসীকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। গতবার লকডাউনের সময় থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে প্রতি জনধন অ্যাকাউন্টে ৫০০ টাকা করে তিন মাস দিয়েছে।এইবারও লকডাউন চলাকালীন সময়ে মানুষজন মনে করছেন যে ওই জনধন অ্যাকাউন্ট আবার কেন্দ্রীয় সরকার টাকা দিতে পারে।

 

এই জন্য বহু মানুষই আবার জনধন অ্যাকাউন্টের দিকে ঝুঁকছেন। নিজের সেভিংস অ্যাকাউন্টকেও জনধন অ্যাকাউন্টে পরিবর্তিত করা যায়। সেই জন্য প্রয়োজন একটি ফর্ম ফিলাপ করার। প্রত্যেক পরিবারে অন্তত যাতে একজন ব্যক্তির ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থাকে সেই লক্ষ্য নিয়ে জনধন প্রকল্প চালু করে নরেন্দ্র মোদী সরকার। জেনে নিন এই জনধন অ্যাকাউন্টের সুবিধা কী কী আছে?

১. জনধন অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে আধার লিংক করালে আগে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ওভারড্রাফ্টের সুবিধা পাওয়া যেত। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে সেই ঊর্ব্বসীমা বাড়িয়ে ১০ হাজার টাকা করা হয়।

 

২. এই অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে ন্যূনতম কোনো নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা রাখার নিয়ম নেই। তবে যদি চেক বই থাকে তাহলে ন্যূনতম ব্যালেন্স রাখতেই হবে।

৩. জনধন অ্যাকাউন্টে টাকা রাখা হলে সেই টাকার উপর ভালো পরিমাণে সুদ পাওয়া যায়।

 

৪. ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিমার সুবিধা পাওয়া যাবে।

গ্রাহকের মৃত্যুর পর গ্রাহকের নমিনি করা ব্যক্তি সেই বিমা পাবেন।

জনধন অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস- জনধন অ‌্যাকাউন্ট খোলার জন্য যে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি প্রয়োজন হবে সেগুলি হল গ্রাহকের নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, ব্যাংকের শাখার নাম, পেশা, নির্ভরশীলদের সংখ্যা, বার্ষিক আয়, নমিনি, গ্রামের কোড বা শহরের কোড ইত্যাদি জানাতে হবে। সেই সঙ্গে আধার কার্ড, প্যান কার্ড, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স, ভোটার আইডি কার্ড জমা দিতে হবে।