লকডাউনে কী সারাদিন মোবাইল ঘেটে কাটাচ্ছেন সময়, তাহলে আপনার অজান্তে ডেকে আনছেন 9 টি মারাত্মক রোগ…

এই লকডাউনের সময় অধিকাংশ মানুষের মোবাইল হাতে সময় কাটছে। কিন্তু সবসময়ই মোবাইল ঘাটলে আপনার শরীরে অনেক মারাত্মক রোগের বাসা বাঁধতে পারে। সম্প্রতি এ বিষয়ে জানিয়েছেন স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানিয়েছেন, ” ভুল ভাবে যদি আমরা মোবাইল ঘাটাঘাটি করি তাহলে ভবিষ্যতে আমাদের পেশিতে টান ধরে যেতে পারে। এমনকি এর দরুন রক্ত সঞ্চালনের গতিবেগ কমে যেতে পারে। ফলে শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ব্যথা অনুভব হবে।

আবার কাজ করতে করতে কাঁধে মোবাইল রেখে ঘাড় কাত করে ফোনে কথা বললেও ভবিষ্যতে ঘাড়ে ব্যথার সৃষ্টি হতে পারে।” অতিরিক্ত মোবাইল ঘাঁটলে কী কী শরীরের রোগ দেখা দিতে পারে সেই বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হলো –
1. সব সময় মোবাইলে মেসেজ বা কোন সোশ্যাল মাধ্যমে লেখালেখি করলে হাতের কব্জিতে এবং আঙুলে ব্যথা দিতে পারে।
2. বৃটেনের একজন হ্যান্ড এবং এলবো সার্জেন রজার পাওয়েল একটি সমীক্ষা করে দেখেছেন যে, যারা দুই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে মোবাইলে মেসেজ করেন তাদের ক্ষেত্রে ‘টেক্সট ক্ল’ এবং ‘সেল ফোন এলবো’ নামক আঙুল এবং কব্জির সমস্যা দেখা দেবে।

3. মোবাইলের টেস্ট করার সময় সব থেকে বেশি বুড়ো আঙুল ব্যবহৃত হয়। তাই এই আঙ্গুলের পাশে থাকা তর্জনী এবং মধ্যমা কাছাকাছি থাকা স্নায়ুর ওপর চাপ পড়ে। এভাবে যদি চলতে থাকে তাহলে ধীরে ধীরে আঙুল অসার লাগবে এবং পরে ব্যথা শুরু হবে।
4. সবসময় মোবাইলে কথা বললে ঘাড়ে এবং কাঁধে ব্যথা হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।
5. মাইগ্রেন এবং মাথায় ব্যথা সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায় অতিরিক্ত মোবাইল ঘাঁটলে।
6. অনেকে আবার কুনুয়ের উপর ভর দিয়ে মোবাইলে টেক্সট করেন। দীর্ঘদিন ধরে যদি কোন মোবাইল ব্যবহারকারী এরকম করতে থাকে তাহলে হাত, কাঁধ এবং ঘাড়ে ব্যথার সৃষ্টি।

7. শুধুমাত্র স্নায়ুরোগ হবে তা নয় অতিরিক্ত মোবাইল ঘাটলে মানসিক দিক থেকেও অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা বেড়ে যায়।
8. রাতের অন্ধকারে দীর্ঘক্ষণ ধরে মোবাইল ঘাটতে থাকলে অনিদ্রার ঝুঁকি বেড়ে যায়। এছাড়াও চোখের জল শুকিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যার ফলে চোখে নানান ধরনের সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে ভবিষ্যতে।
9. অতিরিক্ত মোবাইল ব্যবহার করলে হাড়ের সমস্যা দেখা দিতে পারে। আলনা নার্ভ যদি ক্ষতিগ্রস্ত হয় সেক্ষেত্রে সার্জারি করা ছাড়া আর কোন উপায় নেই।

কিন্তু এই লকডাউনে কাছের পরিবার- পরিজনের সাথে যোগাযোগ রাখার জন্য, এছাড়াও অনলাইন ব্যাংকিং সহ আরও অন্যান্য কাজ করতে মোবাইলে ভরসা এখন।তবে কীভাবে মোবাইল ব্যবহার করলে ক্ষতির সম্ভাবনা কম থাকে সে বিষয়ে নিচে কিছু তথ্য দেওয়া হল –
1. ফোনে কথা বলার সময় যতোটা সম্ভব চেষ্টা করুন স্পিকারে দিয়ে কথা বলার।
2. মোবাইলে টেক্সট করার সময় প্রত্যেকটি আঙ্গুল পর্যায়ক্রমে ব্যবহার করুন।
3. দীর্ঘক্ষণ মোবাইল ব্যবহার করার পর হাত এবং আঙ্গুল স্ট্রেচিং করার অভ্যাস থাকতে হবে।
4. বাচ্চাদের হাতে তো একদমই বেশিক্ষণ ধরে মোবাইল দেবেন না।