পাশে মূল্যবান বন্ধু জেটলি না থাকলে আজ হয়তো মোদীর মোদী হওয়া উঠত না

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হওয়া থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়া পর্যন্ত নরেন্দ্র মোদীকে জাতীয় রাজনীতির শীর্ষে পৌছানোর মূল কারিগর হলেন অরুণ জেটলি। নরেন্দ্র মোদী বর্তমানে যা সাফল্য অর্জন করেছে তার পিছনে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী কিছুটা হলেও ভূমিকা রয়েছে। 2002 সালে গুজরাটে যে হিংসা ছড়িয়েছিল তা সারাদেশে চর্চিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। তৎকালীন সময়ে মোদি সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিল দেশে অধিকাংশ রাজনৈতিক দল।

তৎকালীন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে রাজ ধর্মের কথা স্মরণ করিয়েছিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী। সেই সময় একজনই ছিলেন যিনি বাজপেয়ি কে বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন যে এটি মোদির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সঠিক সময় নয়। তিনি আর কেউ নন। তিনি ছিলেন অরুণ জেটলি।
2007 সালে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী তখন নরেন্দ্র মোদী। উন্নয়নের অন্যতম মুখ যেই মানুষটা তা প্রমাণ করার জন্য মাঠে নেমে পড়েন অরুণ জেটলি।

সেখান থেকেই মোদীকে তৈরি করার কাজ শুরু হয়ে যায়। এরপর 2009 সালে আডবানীর নেতৃত্বে লোকসভা ভোটে বিজেপি লড়াইয়ে নামে। কিন্তু এই লড়াইয়ে জয়লাভ হল না বিজেপির। আর তখন থেকেই ধীরে ধীরে নিজেদের ভিত্ত করতে থাকে বিজেপি। এরপর 2012 সালে আরো একটি লোকসভা ভোট আসে। আডবানীর নেতৃত্বে যে সাফল্য আসবে না তা দলের মধ্যে সুকৌশলে ঢুকিয়ে দেয় জেটলি। এরপর তিনি পাশে টানলেন সুষমা স্বরাজ, রাজনাথ সিং, বেঙ্কাইয়া নাইডু, শিবরাজ সিং চৌহানের মত নেতাদের।

নরেন্দ্র মোদী যে উন্নয়নের কারিগরি তা তিনি দিল্লির রাজনৈতিক ময়দানে মিলে ধরতে শুরু করেন জেটলি।2013 সালে গোয়ায় সাংবাদিক বৈঠকে রাজনাথ সিং নরেন্দ্র মোদিকে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করলেন। পাশের সুষমা স্বরাজ ও অরুণ জেটলি। অরুণ জেটলি এবং বাকি নেতাদের পরিশ্রমের ফল মিলল 2014 সালে হাতেনাতে। দেশের মানুষ নরেন্দ্র দামোদরদাস মোদী কে বিপুল ভোটে জয়ী করে প্রধানমন্ত্রী করেন। তখন চারিদিকে মোদী মোদী নামে জয়ধ্বনি চলছে। গুজরাটের হিংসাকে ইতিহাসের পাতায় স্বর্নাক্ষরে লিখেদিলো ব্র্যান্ড মোদি।

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী করার কারিগর সাধারণ মানুষকে কখনোই ভোলেননি তিনি। এরপর মোদিকে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকে দায়িত্ব দেন জেটলি। জেটলির জামাতে বিমুদ্রাকরণ ও পণ্য পরিষেবা কলের মতন কঠোর সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এমনকি নরেন্দ্র মোদী সরকারের সাংবাদিক বৈঠক করতেও দেখা গিয়েছে অরুণ জেটলি কে। মোদিকে আজ এই জায়গায় আমরা দেখতে পাচ্ছি তার অন্যতম কারণ এই অরুণ জেটলি। তাই তাঁর প্রয়াণে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি টুইট করে বলেন, ‘ মূল্যবান বন্ধুকে হারালাম।’