“রাজ্যে কোন বনধ হবে না” বামেদের ডাকা ধর্মঘট রুখতে কড়া হুঁশিয়ারি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

আগামীকাল অর্থাৎ 8 জানুয়ারি বামেদের 14 টি ট্রেড ইউনিয়নের তরফ থেকে 12 ঘন্টার জন্য ভারত বনধের ডাক দেওয়া হয়েছে। বামেদের ডাকা এই বনধের সমর্থন করছেন কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠন। অপরদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই বনধকে কোনোভাবেই সমর্থন করবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন। এদিন গঙ্গাসাগর সফরে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়ে দেন যে, আমরা এনআরসি এবং সিএএ এর বিরোধিতা করবো ঠিক কিন্তু তার জন্য কোন বনধ করব না।

চারিদিকে অর্থনৈতিক ক্ষতি চলছে তার ওপর আবার যদি বনধ রাখা হয় তাহলে ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়বে। দেশের আরো ক্ষতি হবে। আমরা চাই না যে সাধারণ মানুষের ক্ষতি হোক বনধের জন্য তাই আমরা কোনোভাবেই বনধকে সমর্থন করবো না।
এদিকে আবার 8 ই জানুয়ারি সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের অফিসে আসতে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন। নবান্ন থেকে এমনই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। এই বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্টভাবে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, সিএএ এবং এনআরসির বিরুদ্ধে বাম এবং বিরোধীদের ডাকা বন্ধের দিন কোন রাজ্য সরকারি কর্মচারীরা ছুটি পাবেন না।

এবং আরো বলা হয়েছে যে বনধের আগের দিন অর্থাৎ 7 জানুয়ারি এবং বনধের পরের দিন অর্থাৎ 9 জানুয়ারি এই দুদিন অফিসে আসতে হবে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের। এই পরপর তিনদিন অর্থাৎ 7 তারিখ, 8 তারিখ এবং 9 তারিখ অফিসে না হলে শোকজ করা হবে ওই কর্মচারীকে। নবান্ন দ্বারা প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে এমনি জানানো হয়েছে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারীরা ছুটি পেতে পারেন যেমন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি বা কোনো নিকটাত্মীয়ের মৃত্যুজনিত কোন কারন হলে এবং মাতৃত্বকালীন ছুটির ক্ষেত্রেও এই বিজ্ঞপ্তি লাগু হবে না।

তবে বন্ধের বিরোধিতা করা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এবার প্রথম নয়। তিনি যেদিন থেকে মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন অর্থাৎ 2011 সাল থেকে বনধের বিরোধিতা করে আসছেন। যদিও সিএএ এবং এনআরসির বিরোধিতা বারবার করে আসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  কিন্তু তিনি কোন বনধকে সমর্থন করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। অপরদিকে বিরোধিতা বারবার দাবি করে আসছে ধর্মঘট করা গণতান্ত্রিক অধিকার এবং এরই সাথে বিরোধীরা বলছে যে কোনো দাবি আদায় করার জন্য ধর্মঘট এই হল একমাত্র পথ।

আরও পড়ুন :