করোনা আবহে কী ভাবে বাজেটের মাধ্যমে ঘুরে দাঁড়াবে দেশীয় অর্থনীতি? কী বলছেন বিশেষজ্ঞরা?

করোনা সংক্রমনের জেরে দীর্ঘদিন লকডাউনে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ভারতীয় অর্থনীতি।  এই পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করছে কেন্দ্রীয় সরকার। প্রত্যেক বছরের বাজেট নিয়ে আশায় থাকেন একাধিক মানুষ।  ছোট ব্যবসা, ক্ষুদ্র শিল্প,  ও ক্ষুদ্র শিল্প থেকে শুরু করে চাকরিজীবী কিংবা একেবারেই সাধারণ মানুষ সকলেরই কিছু না কিছু প্রত্যাশা থাকে বাজেটকে ঘিরে।

কিন্তু এই বছরটা সমস্ত বছরের তুলনায় বেশ গুরুত্বপূর্ণ তার কারণ এই প্যানডেমিক অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন জানিয়েছেন 2021 এর বাজেটে একাধিক পরিবর্তন থাকবে৷  বাজেট এমন হবে যা বিগত 100 বছরের কখনো দেখা যায়নি। ২০২০ সালের বাজেট একাধিক পরিবর্তন আনা হয়েছিল।  কিন্তু গোটা বছরজুড়ে যেভাবে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়েছে দেশকে তাতে অর্থনৈতিক অবস্থা ঝুঁকির  মুখে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

তাই এবার প্যানডেমিক এর কথা মাথায় রেখেই একাধিক পরিবর্তন এবং জরুরী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।  এর প্রভাব পড়েছে জিএসটি এবং ডিরেক্ট ট্যাক্স এর ক্ষেত্রে৷   অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে কোন পরিস্থিতিতে কি প্রয়োজন তা বোঝার  জন্য নজর দিতে হবে 2022 অর্থবর্ষে।

সরকারকে ঋণের পরিমাণ স্বাভাবিক করতে হবে।  কারণ 2021 অর্থবর্ষে ঋণের পরিমাণ দাঁড়াবে ১০  ট্রিলিয়ন এর কাছাকাছি।  ২০২০  অর্থবর্ষে যে পরিমাণ ঋণ নেওয়া হয়েছিল তার তুলনায় 2021 এর ঋণ গ্রহণের পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ।  তাই 2022 এর অর্থবর্ষে যদি এত বেশি টাকার ঋণ নেয় সরকার তাহলে চ্যালেঞ্জ প্রবল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে যাবে।

তাই চেষ্টা করতে হবে 2021 সালে যে পরিমাণ অর্থ ঋণ নেওয়া হয়েছে 2022 এ যেন তেমনটা না হয়।  এবং 2022 অর্থবর্ষে সুদের পরিমাণ প্রায় দ্বিগুণ হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।  জিডিপি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ট্যাক্স রিসিপ্ট  পুনরুদ্ধার করা,

2022 এ যদি তেলের দাম বাড়ে তাহলে আর্থিক ক্ষেত্রে কি কি পরিবর্তন আনা হতে পারে?  পাবলিক ইনভেস্টমেন্ট এর মাধ্যমে সরকার কাজ করতে পারে।  আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল আর্থিক বছরে ফিসক্যাল দুই বছরের মধ্যে দুগুণ হতে পারে।  পাবলিক ইনভেসমেন্ট 1 শতাংশ জিডিপি বৃদ্ধি উন্নত অর্থনীতি এবং বাজারগুলোকে 2.7% পর্যন্ত জিডিপি বৃদ্ধিতে সাহায্য করতে পারে৷

অন্যান্য টেলিকম সংস্থার তুলনায় দুর্দান্ত ও সস্তার প্ল্যান, রিচার্জ করলেই দ্বিগুণ ইন্টারনেট দিচ্ছে Vodafone

10 শতাংশ বেসরকারি বিনিয়োগ হলে ২০ থেকে ৩৩ মিলিয়ন কর্মসংস্থান তৈরি করতে পারে।  2022 অর্থবর্ষে নতুন কৌশল নিতে হবে যাতে কেন্দ্র 53 থেকে 55 শতাংশ পর্যন্ত  ঋণ সীমাবদ্ধ রাখে। ফিসক্যাল এর অর্ধেক হয় সেক্ষেত্রে 75% পাবলিক হাসপাতালে বিনিয়োগ করার দিকে নজর দিতে হবে৷ সেইসঙ্গে দরকার রাজ্যকে প্রয়োজনীয় অর্থ প্রদান করা।  এনআইআইএফ গুলিতে অর্থ বরাদ্দ এর পরিমাণ বাড়াতে হবে।