চুল পড়ছে খুব? মাথায় নতুন চুল গজাতে ম্যাজিকের মত কাজ করে ঠাকুমা দিদিমাদের এই টোটকা!

আজকের দিনে অন্যতম প্রধান একটি সমস্যা হল চুল পড়া৷ ১৮-৮০ সকলের মুখে একই কথা কী করলে চুল পড়া কমবে৷ কিন্তু বিজ্ঞান বলছে চুল একটা সময়ের পর পড়ে যাওয়া স্বাভাবিক৷ চুলের একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর প্রাণ থাকে না৷ তাই আপনা থেকেই গোড়া থেকে খসে পড়ে চুল৷ দিনে ৫০ থেকে ১০০টি চুল পড়া স্বাভাবিক। কিন্তু এর বেশি হলেই তা চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

প্রথমেই জানা প্রয়োজন কী কারণে চুল পড়ছে। চুল পড়া বন্ধ করতে ও চুলের গোড়া মজবুত রাখতে নিয়মিত যত্ন নেওয়াও প্রয়োজন। চুল পড়া রোধ করতে প্রথমে চুলের  যত্ন নিতে হবে৷ এই যত্ন নেওয়ার প্রথম শর্ত হচ্ছে ভেতরে ও বাইরে দুই দিক থেকেই যত্ন নিতে হবে। দুধ, ডিম ও কলা খেতে হবে৷ এই সমস্ত খাবারে থাকে প্রোটিন। এই তিনটি খাবার চুলের জন্য খুব উপযোগী। খারাপ খাদ্যাভ্যাস এর কারণেও চুল পড়তে পারে৷প্রোটিন-সমৃদ্ধ খাবার চুল পড়া কমাতে সাহায্য করে। ভিটামিন ই যুক্ত খাবার, সামুদ্রিক মাছ ডিম, দুধ চুলের জন্য খুবই উপকারী।

বর্ষায় মাথার চুল ভেজা থাকে, বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকে৷ তাই এ সময় বেশি যত্নের প্রয়োজন হয়। প্রতিদিন স্নানের কিচ্ছুক্ষণ আগে  মাথায় তেল দিয়ে  শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে হবে। হরমোনের ইমব্যালান্স হলেও চুল পড়ে। হরমোনের ইমব্যালান্সের ক্ষেত্রে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

এছাড়া বাড়িতে থেকে আপনি যা করতে পারবেন, চুল পড়া বন্ধ বা চুলের যত্ন নিতে অবশ্যই তেল দিতে হবে। নারকেল তেল  খুব উপকারী৷ নারকেল তেল চুলকে মসৃণ ও স্বাস্থ্যবান করে। এতে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য আছে, যেকোনো ব্যাকটেরিয়া বা ফাঙ্গাসের আক্রমণ থেকে চুলকে রক্ষা করে নারকেল তেল। তাই সপ্তাহে অন্তত একদিন চুলে তেল দিতে হবে।   শ্যাম্পু করার আগে চুলে গরম তেল বা হট অয়েল ম্যাসাজ করলে উপকার পাওয়া যাবে৷

এছাড়া প্রাকৃতিক কিছু উপাদান আমলকী, নারকেল, জলপাই, জোজোবা, ক্যাস্টর অয়েল এসব  উপাদান চুল পড়া বন্ধ করতে সাহায্য করে। সেইসঙ্গে নতুন চুল গজাতেও সাহায্য করে৷

গ্রাহকদের জন্য সুসংবাদ! ফিক্সড ডিপোজিটে সুদের হার বাড়াল SBI

শ্যাম্পুতে বিটরুট নির্যাস, তেঁতুলের বীজ রাখলে ভালো হবে । তবে সরাসরি শুকনো চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না। তেল দিয়ে তারপর শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। কিন্তু কখনোই কেমিক্যাল শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না৷ কন্ডিশনার ব্যবহার করলে চুল কেবল উজ্জ্বলই হয় না; এটি চুলের গোড়াকে মজবুত করে ও চুলকে মসৃণ করে। কিন্তু চুলের ধরন বুঝে কন্ডিশনার বেছে নিতে হবে। গরম জল কখনোই মাথায় দেবেন না৷ এতে চুল পড়ে যায়,  চুল দুর্বল হয়ে যায়৷

যদি খুব বেশি চুল পড়ে, তাহলে হেয়ার প্যাক ব্যবহার করা যেতে পারে। আমলকী, শিকাকাই, নিমের গুঁড়ো সম পরিমাণে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করা যেতে পারে৷ জবাফুল হেয়ার প্যাকে দিতে পারেন৷ খুব উপকার৷  সপ্তাহে একবার এই হেয়ার প্যাক  ব্যবহার করলে  চুল পড়া কমবে৷  এ ছাড়া ডিম, মেথির গুঁড়ো ও টক দই মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে চুলে লাগালে চুলের গোড়া মজবুত হয়। প্যাক ধোওয়ার জন্য ইষদুষ্ণ জল ব্যবহার করতে হবে৷ কেমিক্যাল রঙ,  কিংবা হিট দিয়ে চুলের স্টাইলিং না করলেই ভালো৷ এগুলো  চুলের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।