সহজেই বাড়িতে বানিয়ে ফেলুন কাঁচা আমের আচার, রইল গোটা রেসিপি

আমাদের স্বাদকে বহুগুণ বাড়িয়ে দেয় আচার। টক-ঝাল-মিষ্টি যেকোনো স্বাদে আচার তৈরি করতে পারেন ভারতীয় মহিলারা। এই আচার তৈরি করা হয় লেবু, টমেটো, পেঁয়াজ, রসুন, আমলা, কাঁঠাল,আমলকি দিয়ে। তবে এই সবকিছুর মধ্যে যেটি সবার ভীষণভাবে প্রিয় সেটি হল আমের আচার। গরমকালে প্রায় প্রত্যেক ভারতীয়দের ছাদে অথবা উঠোনে দেখতে পাওয়া যাবে আমের আচার। বিশেষত গ্রামাঞ্চলের বয়স্ক মহিলারা গরমকালে আচার তৈরি করেন।

আজ আমরা আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করব ঐতিহ্যবাহী আমের আচারের রেসিপি যা অনুসরণ করলে আপনি বাড়িতে বসে খুব সহজে তৈরি করতে পারেন আমের আচার। আপনার সঙ্গে এমন একটি ভিডিও শেয়ার করবো যা অনুসরণ করলে আপনি খুব সহজেই তৈরি করতে পারবেন এই আচার।

আমের আচার তৈরি করার জন্য যেকোনো ধরনের কাঁচা আম নিতে হবে আপনাকে। প্রথমেই ওজন অনুযায়ী আম নিয়ে নিতে হবে। ভালো করে আমগুলি ধুয়ে কেটে নিতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে আমের দানা জানো শক্ত হয়। পছন্দসই মাপ অনুযায়ী আমগুলি কেটে সমান সমান টুকরো করে রেখে দিতে হবে।

আম কাটার পর একটি বড় পাত্রে রেখে একটি সুতির কাপড় দিয়ে ভালো করে মুছে নিতে হবে। আমের আচার দীর্ঘদিন খেতে চাইলে তা শুকনো করা ভীষণভাবে জরুরি। তাই ৬ ঘন্টা আম গুলোকে রোদে শুকিয়ে দেবার জন্য রেখে দিতে হবে। আম থেকে সমস্ত আদ্রতা সরে গিয়ে আমগুলি শুকনো হয়ে যাবে।

এবার একটি বড় পাত্রে রেখে তাতে হলুদ এবং লবণ মিশিয়ে নিতে হবে। ওজন অনুযায়ী আপনাকে লবণ এবং হলুদের পরিমাণ বাড়াতে হবে। হলুদ লবণ ভালো করে মিশিয়ে কাপড় দিয়ে ঢেকে দিয়ে ঢেকে দিতে হবে সারারাত। এরপর দেখতে হবে আমগুলি জল ছাড়ছে কিনা, যদি জল না ছাড়ে তাহলে বুঝবে নামগুলি খুব ভালোভাবে শুকিয়ে গেছে। এবার আমগুলি আচার করার জন্য প্রস্তুত হয়েছে।

এবার আচার প্রস্তুত করার জন্য প্রথমে একটি প্যানে ১০০ গ্রাম সরিষা নিয়ে নিন। এরপর ৫০ গ্রাম জিরা ব্যবহার করতে হবে। প্রয়োজনে ধনেপাতা ব্যবহার করতে পারেন। এরপর ৩০ গ্রাম মৌরি যোগ করুন। শেষে দুই চামচ মেথির বীজ এবং বেশ কয়েকটি লঙ্কা দিয়ে দিতে হবে।

সমস্ত মসলা মিশিয়ে নিয়ে গ্যাস ওভেনে কিছুক্ষণ জন্য গরম করুন। মসলা ভাজার সময় খেয়াল রাখতে হবে যাতে মসলাগুলো বেশি ভাজা না হয়ে যায়, শুধু গরম হয়। এবার মসলা গুলি নামিয়ে ঠান্ডা করে একটি প্যানে এককাপ সরষের তেল গরম করুন। সরষের তেল যখন গরম হয়ে যাবে তখন গ্যাস বন্ধ করে তেল ঠান্ডা করতে রেখে দিন। অন্যদিকে মসলা গুলি মিক্সার গ্রাইন্ডার ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে নিতে হবে, মনে রাখবেন জল ব্যবহার করলে চলবে না। মসলা গুলি যেন একটু মোটা করে পিষে ফেলা হয়।

মশলা তৈরি করার পর এবার একটি বড় পাত্রে এক চামচ হিং নিতে হবে। আপনি যদি হিং পছন্দ না করেন তাহলে দেবেন না। এবার ২ টেবিল চামচ আজইন পাউডার দিয়ে দিতে হবে। এই পাউডার দিলে আচার এরশাদ আরো ভালো হয়। রং আনার জন্য দিতে পারেন কাশ্মীরি লাল মরিচের গুঁড়ো। সবশেষে ভাজা মশলা যোগ করে দিতে হবে। প্রয়োজন হলে অল্প লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে সবকিছু।

এবার গরম করা তেলে দিয়ে দিতে হবে পুরো মসলা। মনে রাখতে হবে তেল যাতে খুব গরম অথবা খুব ঠাণ্ডা না হয়। এবার মসলায় অল্প ভিনিগার মিশিয়ে দিতে হবে। এবার এই মিশ্রণটি ভাল করে মিশিয়ে শুকনো আম যোগ করুন। সমস্ত উপকরণটি কয়েক ঘণ্টার জন্য রোদে শুকোতে দিয়ে দিন। আচার রোদে রাখার পর শুকিয়ে গেলে একটি বয়ামে ভরে রাখতে পারেন। ৪ ঘন্টা রোদে শুকানোর পর আচারের মধ্যে অল্প দিয়ে দিন গরম তেল যাতে আরো বেশ কিছুদিন এটি ভালো থাকে।

এবার আপনার আচার একেবারেই প্রস্তুত। কাচের বয়ামে রেখে দিলে সারা বছর এই আচার ভালো থাকবে। ভেজা পাত্র অথবা ভেজা হাত ব্যবহার করবেন না। বয়াম থেকে আচার বের করার জন্য শুকনো চামচ ব্যবহার করবেন। এই পদ্ধতি অবলম্বন করলে আপনি প্রায় একবছর ভালোভাবে ব্যবহার করতে পারবেন আপনার সাধের আমের আচার।