এবার বিপাকে গান্ধী পরিবার, রাজীব-ইন্দিরা ট্রাস্টের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ কেন্দ্রের…

এবার খবরের শিরোনামে গান্ধী পরিবার। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে গান্ধী পরিবারের উপর অভিযোগ আনা হয়েছে। গান্ধী পরিবারের তিনটি ট্রাস্টের উপর আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ উঠে এসেছে। এ বিষয়ে তদন্ত করার জন্য আলাদাভাবে মন্ত্রী পরিষদের কমিটি গঠন করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের মুখপাত্র বুধবার সকালে টুইট করে সকলকে জানিয়ে দিয়েছেন যে, রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন, রাজীব গান্ধী চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, এবং ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল ট্রাস্ট অর্থাৎ গান্ধী পরিবারের এই তিনটি ট্রাস্ট এর উপর আইকর নিয়ম ভাঙ্গা এবং বেআইনিভাবে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ রয়েছে।

এই পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে ইন্টার-মিনিসটেরিয়াল কমিটি গঠন করা হয়েছে। ষষ্ঠ মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে এই কমিটির প্রধান হিসেবে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরের স্পেশাল ডিরেক্টরকে নিযুক্ত করা। এই কমিটিকে ইনি নেতৃত্ব দেবেন। প্রসঙ্গত গত মাসেই কংগ্রেসের বিরুদ্ধে এই ধরনের অভিযোগ আনেন বিজেপি। বিজেপির দাবি কংগ্রেস যখন ক্ষমতায় ছিল তখন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং বেআইনিভাবে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশনকে আর্থিক সাহায্য করতেন।

এ বিষয়ে বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা জানিয়েছেন যে, ‘ মানুষকে সাহায্য করার জন্য তৈরি করা হয়েছে PMNRF। কিন্তু কংগ্রেস আমলে সেখান থেকে টাকা পাঠানো হতো রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশনকে। তিনি প্রশ্ন করেছেন সেই সময় PMNRF বোর্ডে কে ছিলেন। শ্রীমতি সোনিয়া গান্ধী RGF এর চেয়ারে কে ছিলেন সেই সময়। এই পুরো বিষয়টি সম্পূর্ণ নিন্দনীয় এবং অস্বচ্ছ।’ বিজেপি কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ তুলে যে, 1991 সালে বাজেট পেশ করার সময় সেকালের অর্থমন্ত্রী মনমোহন সিং রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন এর জন্য মোট 100 কোটি টাকা বরাদ্দ করেন।

যদিও বিজেপির এই অভিযোগ আগেই খারিজ করে দিয়েছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের পাল্টা অভিযোগ চীনের সঙ্গে চলা সংঘাতে সরকারের ব্যর্থতা থেকে সাধারণ মানুষের চোখ সরানোর জন্য বিজেপি এ ধরনের অভিযোগ করছে। আর তাই এই বিষয়ে তদন্ত করার জন্য একটি কমিটি গঠন করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।
অপরদিকে আবার রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশনে চীন পর্যন্ত টাকা দিয়েছে বলে অভিযোগ এনেছে বিজেপি। সম্প্রতি 2005 থেকে 2006 সালে রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশনে ডোনেশন হিসেবে টাকা দিয়েছে চীন। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর রবিশঙ্কর প্রসাদ জানিয়েছেন যে, ‘ সেই সময় ইউপিএ সরকার চীনের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছিলো?


রাজীব গান্ধী ফাউন্ডেশন চীনের কাছ থেকে ডোনেশন নেওয়াটা কি চীনের আনুগত্য নয়? এছাড়াও তিনি আরও প্রশ্ন করেন যে, এরপর থেকেই সেই সময় চীনের সাথে ফ্রি ট্রেড করা হয়নি কি?’ তিনি কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বলেন যে,’ কংগ্রেসকে এই সমস্ত কিছুর উত্তর দিতে হবে। এমনকি ওই টাকা কোথায় কত খরচ হয়েছে তাও দেখাতে হবে।’

Related Articles

Back to top button