ভারতের সীমানা দখল করা ছেলেখেলা নয়, প্রয়োজনে গোটা চীনকে শেষ করে দেওয়া হবে কড়া হুঁশিয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের..

বেশ কয়েকদিন ধরে লাদাখ সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা তুঙ্গে উঠে গিয়েছিল। এরপর এই উত্তেজনা কমানোর জন্য দুই দেশের শীর্ষ সেনা কর্তারা বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেন। এবং রবিবার দুই দেশের সেনা কর্মকর্তারা উত্তেজনা কমানোর জন্য একমত হয়েছেন বলে জানানো হয়েছে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে। ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ইতিমধ্যে সীমান্তে দখলদারি নিয়ে বেইজিংকে কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

সোমবার এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ওড়িশার জনসংবাদ রেলিতে ভাষণ দিচ্ছিলেন তিনি। সেই সময় তিনি বলেন, ভারতের সীমান্ত দখল করা কোনো সহজ ব্যাপার নয়। এবং তিনি সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এবং বিমান হামলার কথা মনে করিয়ে দেন শত্রুদের। ভারতে জঙ্গি হামলা হওয়ার পরে সময় নষ্ট করেননি নরেন্দ্র মোদি। সঙ্গে সঙ্গে শত্রুদের কড়া জবাব দিয়েছেন তিনি।সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এবং বিমান হামলা করে পাকিস্তানকে তার যোগ্য জবাব দিয়েছে ভারত। এরপর থেকেই সারা বিশ্ব বুঝতে পেরে গেছে ভারতীয় সীমান্তের ঢুকে হামলা করা কোন মুখের কথা নয়।

এর পরিণিতি যে ভয়ঙ্কর হবে তা দেখিয়ে দিয়েছে ভারত। কিছুদিন আগে এমনি একটি সভা করেন তিনি বিহারে এবং তারপরেই সেদিন ওড়িশায় সভা করেন।এছাড়াও ওইদিন তিনি কয়েক বছরে কেন্দ্রের সাফল্য খতিয়ান তুলে ধরেন সবার সামনে এবং তিনি বলেন, এর আগে দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে অনেকে ক্ষমতায় এসেছেন। কিন্তু কারোর আজ পর্যন্ত সাহস হয়নি 370 ধারা ও 35এ ধারা তুলে নেওয়ার। মোদি সরকার ক্ষমতায় এসে তা করে দেখিয়েছে।

প্রসঙ্গত বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে লাদাখ সীমান্তে একেবারে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছে ভারত ও চীনের সেনারা। দুই দেশেই প্রচুর সৈন্য নিয়ে অপেক্ষা করছে সীমান্তে। বারবার বৈঠক করার পরেও কী তাদের জায়গা থেকে বিন্দুমাত্র সরতে রাজি হয়নি। প্রাথমিক ভাবে কোন কাজ না হওয়ার কারণে শেষ পর্যন্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল স্তরে দুই দেশ বৈঠকে বসে শনিবার। আর এর পরেই সীমান্তে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার সিদ্ধান্ত নেয় দুই দেশ।

Related Articles

Close