চাপ বাড়ল রাজ্য সরকারের, SSC গ্রুপ ডি নিয়োগে এবার সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের

এস এস সি গ্রুপ নিয়োগের ক্ষেত্রে বড়োসড়ো ঘোষণা করল কলকাতা হাইকোর্ট। সোমবার বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ এস এস সি গ্রুপ নিয়োগের বেনিয়মের অভিযোগ মামলার তদন্তভার দিয়ে দিল সিবিআইকে। যদিও কলকাতা হাইকোর্টের এই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ডিভিশন বেঞ্চে যাবার পরিকল্পনা করছে। সোমবার মামলার শুনানি চলাকালে বিচারপতি জানিয়েছেন, রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কোনো ব্যক্তিগত ভাবে বিরোধ নেই কলকাতা হাইকোর্টের। দুষ্কৃতীরা কোন রাজনৈতিক দলের হয় না। তবে দুষ্কৃতীকে চিহ্নিত করতে হবে এবং তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।

এরপরই সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেন কলকাতা হাইকোর্ট। ভুয়ো সুপারিশ পত্রগুলি খতিয়ে দেখার জন্য ডিআইজি আধিকারিক কে নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি। তদন্ত শেষে এ সমস্ত রিপোর্ট কলকাতা হাইকোর্টে জমা দিতে হবে আগামী ২১ ডিসেম্বরের মধ্যেই।

২০১৬ সালে গ্রুপ-ডি কর্মী হিসেবে প্রায় ১৩ হাজার নিয়োগের সুপারিশ দিয়েছিল রাজ্য। পর্যায়ক্রমে পরীক্ষা এবং ইন্টারভিউ নেয় সেন্ট্রাল স্কুল সার্ভিস কমিশন। পরীক্ষার ভিত্তিতে তৈরি করা হয় প্যানেল
২০১৯ সালে ওই প্যারোলের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। প্যারোলের মেয়াদ শেষ হবার পরেও কমিশন নিয়মবহির্ভূতভাবে প্রচুর নিয়োগ করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

নিয়মবহির্ভূতভাবে ২৫ জনের নিয়োগের সুপারিশ সংক্রান্ত তথ্য তুলে ধরে হাইকোর্টে মামলা করা হয়। এরপরই ওই ২৫ জনের নিয়োগের সুপারিশ এর সমস্ত নথি আদালতে পেশ করতে বলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। সুপারিশ নথি সম্পর্কে ব্যাখ্যা সন্তোষজনক না হওয়ায় সিবিআই তদন্ত ভার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

বিচারপতির কাছে যে হলফনামা জমা দেওয়া হয়েছিল, তাতে বিচারপতি অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং এসএসসি সচিবকে ভৎসনা করেন। এরপর সোমবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদ হলফনামা জমা দেওয়ার পরেও সন্তুষ্ট হয়নি হাইকোর্ট। অবশেষে সমস্ত বিষয়টির তদন্ত ভার দেওয়া হয় সিবিআই এর কাছে।