রেলের তৎকাল টিকিট কাটার পদ্ধতিতে নিয়ে আসা হল বেশ কিছু বড় পরিবর্তন, বিস্তারিত জানতে…

ট্রেনের টিকিট বাতিল করা হলে আদেও কী অর্থ ফেরত পাওয়া যাবে সে বিষয়ে অনেকেই চিন্তিত থাকেন। এবার যাত্রীদের সুবিধার কথা ভেবে কতগুলি জরুরি পদক্ষেপ নিল ইন্ডিয়ান রেলওয়ে। IRCTC জাতীয় পরিবহনের ই-টিকিটিং এবং ক্যাটারিং আর্ম অনুসারে 2015 সালে যাত্রীদের সুবিধার জন্য অনলাইনে টিকিট বুকিং ব্যবস্থা এবং ব্ল্যাক টিকিট সহ আরও অন্যান্য কারচুপি রুখতে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়। এবার 2020 সালে এই সমস্ত নিয়মাবলী গুলিতে কিছু সংশোধন করা হয়েছে।

অসংরক্ষিত, আরএসি এবং ওয়েটলিস্ট এর টিকিট বাতিল করার জন্য, বাতিলকরণ এর মূল্য হিসেবে অসংরক্ষিত (দ্বিতীয় শ্রেণীর) জন্য 30 টাকা, দ্বিতীয় শ্রেণীর (সংরক্ষিত) দের জন্য এবং অন্যান্য শ্রেণীর জন্য 60 টাকা। এছাড়াও এক্ষেত্রে কিছু কিছু বিষয় আমাদের জানা প্রয়োজন।

1. ট্রেনের নির্ধারিত যাত্রা শুরু করার 48 ঘণ্টা আগে কনফার্ম রিজার্ভ টিকিট বাতিল করা হলে সে ক্ষেত্রে, ফার্স্ট ক্লাস এসি এক্সিকিউটিভ ক্লাসের বাতিলকরন -এর জন্য 240 টাকা চার্জ। সেকেন্ড ক্লাস এসি বা প্রথম শ্রেণীর ক্ষেত্রে বাতিল করনের চার্জ হবে 200 টাকা। থার্ড ক্লাস এসি বা ACC বা 3A ইকোনমিক ক্লাসের বাতিলকরণের চার্জ হবে 180 টাকা। সেকেন্ড ক্লাস স্লিপার শ্রেণির ক্ষেত্রে চার্জ 120 টাকা রাখা হয়েছে।

ট্রেনের নির্ধারিত যাত্রা শুরু হওয়ার আগে 24 ঘন্টা থেকে 12 ঘণ্টার মধ্যে কনফার্ম রিসার্ভ টিকিট বাতিল করার পরে বাতিলকরণের যে চার্জ সেই টাকার ওপরে 25%  আরো বেশি টাকা দিতে হবে। ট্রেন ছাড়ার আধ ঘণ্টা আগে পর্শিয়ালি কনফার্ম টিকিটের টাকা ফেরত দেওয়া হয়।ট্রেন নির্ধারিত যাত্রা শুরু করার 12 ঘন্টা থেকে আট ঘণ্টা আগে যদি কনফার্ম রেজাল্ট টিকিট বাতিল করা হয় তাহলে বাতিল করার জন্য যে চার্জ দিতে হয় তার ওপর আবার 50 শতাংশ বেশি চার্জ দিতে হবে।

ইন্টারনেট টিকিটের ক্ষেত্রে অটোমেটিক রিফান্ড দেওয়া দেওয়া হয় তাই এক্ষেত্রে কোন TDR ফাইলের প্রয়োজন পড়বে না।
2. যদি কেউ সরকারি IRCTC ওয়েবসাইট বা 139 থেকে টিকিট বাতিল করে দেন তাহলে ওই ব্যক্তি রিজার্ভেশন কাউন্টার থেকে অর্থ সংগ্রহ করতে পারবেন। 3. অনলাইন থেকে টিকিট বাতিল করলে 5 দিনের মধ্যে ফেরত অর্থ ব্যাংকে ঢুকে যাবে।

4. যদি কোন ব্যক্তি অব্যবহৃত টিকিটের টাইম ফুরিয়ে যাওয়ার পর টাকা ফেরত চান তাহলে ওই ব্যক্তিকে ওই স্টেশনের স্টেশন মাস্টার এর সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।
5. যদি কোন ব্যক্তি কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে রিজার্ভেশন কাউন্টারে এসে পৌঁছতে না পারেন তাহলে তাকে TDR ফাইল জমা দিতে হবে। এক্ষেত্রে ওই ব্যক্তি তিন মাস বা 90 দিনের মধ্যে টাকা ফেরত পাবেন। 6. হারিয়ে যাওয়ার টিকিট এর ক্ষেত্রে কোনো টাকা ফেরত দেওয়া হবে না বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে নির্দেশিকায়। টিকিট ছিঁড়ে গেলে বা কোনভাবে নষ্ট হয়ে গেলে সেই টিকিটের গায়ে লেখার উপর ভিত্তি করে ঠিক করা হবে ওই ব্যক্তি টাকা ফেরত পাবেন কী না।

7. গত বছর থেকে আইআরসিটিসি এজেন্টদের থেকে বুক করা ই-টিকিটের জন্য নতুন ধরনের ওটিপি ভিত্তিক রিফান্ড সিস্টেম চালু করা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোনো ব্যাক্তি যদি টিকিট বাতিল করার কথা ভাবেন তাহলে এসএমএসের মাধ্যমে একটি ওটিপি পাঠানো হবে। এরপর ওই টাকা ফেরত পাওয়ার জন্য ওই ব্যক্তিকে টিকিট বুক করা এজেন্টের কাছে ওই ওটিপিটি দিতে হবে। 8. গতবছর আরেকটি নিয়ম চালু করা হয়েছিল যা হল, দ্বিতীয় ট্রেনের টিকিট বুকিং করার সময় একটি PNR লিংক করার অপশন দেওয়া হয়েছিল। এর সুবিধা হল যদি কোন ব্যক্তি প্রথম ট্রেনটি দেরিতে চলার কারণে সংযোগকারী ট্রেনটি মিস করেন তাহলে যেটুকু অংশ এই ব্যক্তিটি ভ্রমণ করেছেন তার ভাড়া কেটে নিয়ে বাকি ভাড়াটি ব্যালেন্স হিসেবে সেই ব্যক্তিটি কে ফেরত দিয়ে দেওয়া।