বিদ্বেষপূর্ণ বিভাজন ছড়ানো হচ্ছে জিওর বিরুদ্ধে – অভিযোগ আনলেন মুকেশ আম্বানি

কৃষক বিরোধী তকমা দিয়ে বিদ্বেষপূর্ণ বিভাজন তৈরি করা হচ্ছে রিলায়েন্স জিওর বিরুদ্ধে। আর এই কাজটা করছে জিওর প্রতিদ্বন্ধী এয়ারটেল এবং ভোডাফোন আইডিয়া। বিদ্বেষ ছড়িয়ে জিওর গ্রাহক কমিয়ে দেওয়া হচ্ছে বলে মুকেশ আম্বানি ট্রাই এর কাছে অভিযোগ এনেছে।

যদিও রিলায়েন্স জিওর এই অভিযোগ একেবারেই ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন অন্য দুই টেলিকম সংস্থা। বেশ কয়েকদিন ধরেই কৃষি বিল বিতর্ক গোটা দেশ সরগরম৷ সম্প্রতি সংসদে পাস হওয়া নতুন কৃষি বিলের বিরোধিতা করে কৃষকরা আন্দোলনে নেমেছে। এবার সেই আন্দোলনের জের এসে পড়ল জিও এর ওপর৷

আন্দোলনরত কৃষকদের অভিযোগ নতুন কৃষি বিল তাদের স্বার্থ বিরোধী। এই কৃষি বিল আনা হচ্ছে কর্পোরেটদের সুবিধার্থে। তার ফলে স্বাভাবিক ভাবেই আঙ্গুল উঠছে আদানি আম্বানিদের দিকে। জিওর কর্মকর্তা মুকেশ আম্বানির র কৃষি পণ্য বিক্রির ব্যবসা রয়েছে৷  এই পরিস্থিতিতে জিও অভিযোগ জানিয়েছে তাদের প্রতিদ্বন্দ্বি টেলিকম সংস্থা এজেন্ট এবং খুচরা বিক্রেতাদের মাধ্যমে প্রচার চালাচ্ছে এই মর্মে যে জিও ছাড়লে কৃষক আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানানো হবে।

নতুন সংসদ ও মধ্যপ্রদেশ এর বিজয় মন্দিরের মধ্যে রয়েছে অদ্ভুত মিল, যেখানে ঔরঙ্গজেব চালিয়েছিলেন গোলাবারুদ

 

 

আর এই প্রচারের ফলে মোবাইল নাম্বার পোর্টেবিলিটির মাধ্যমে জিও ছেড়ে অন্য সংস্থায় তাদের টেলিফোন নাম্বার পোর্ট করিয়ে দিচ্ছেন কৃষকরা। কিন্তু এই সমস্ত গ্রাহকদের জিও পরিষেবা সম্পর্কে কোনো অভিযোগ নেই। এমন অভিযোগ ওঠায় এয়ারটেল, ভোডাফোন আইডিয়া পক্ষ থেকে পাল্টা দাবি করা হয়েছে নীতি মেনে তারা ব্যবসা করেন। এয়ারটেল জানিয়েছে এমন অভিযোগ ভিত্তিহীন। কারণ সেপ্টেম্বর এর রিপোর্ট অনুসারে জিওর গ্রাহক সংখ্যা 40.6 কোটি। যেখানে এয়ারটেলের গ্রাহক সংখ্যা 29.4 কোটি ভোডাফোনের গ্রাহকসংখ্যা 27.2 কোটি।