ফুলটাইম অথবা পার্ট টাইম কাজ করে অ্যামাজন থেকে মাসে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা উপার্জনের দুর্দান্ত সুযোগ

অ্যামাজন (Amazon) নিয়ে আসছে মাসে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা উপার্জনের এক দুর্দান্ত সুযোগ। এক্ষেত্রে একজন কর্মী সারাদিন নয় দিনের মাত্র কয়েক ঘণ্টা কাজ করেই উপার্জন করতে পারবেন হাজার হাজার টাকা। আপনার যদি মাসে ৬০ থেকে ৭০ হাজার টাকা উপার্জনের পরিকল্পনা থাকে তাহলে অ্যামাজনে মাত্র ৪ ঘন্টা কাজ করেই আপনি তা উপার্জন করতে পারবেন। বিশ্বের সবথেকে বড় ই-কমার্স সংস্থা অ্যামাজন এই সুযোগ নিয়ে আসছে। সংস্থার তরফ থেকে বলা হচ্ছে একজন কর্মীকে বাধ্যতামূলক ৯ ঘণ্টা আর কাজ করতে হবে না।

পার্টটাইম কাজ হিসাবে দিনে মাত্র ৪ ঘন্টা কাজ করেই ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবে কোন একজন কর্মী। ফুলটাইম এবং পার্ট-টাইম দু’রকম ভাবেই কর্মীরা কাজ করতে পারবেন। অ্যামাজনের ডেলিভারি বয় হিসেবে একজন কর্মী গ্রাহকের ঠিকানায় তার অর্ডার দিয়ে জিনিসপত্র পৌঁছে দিয়ে বেশ ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন । এক্ষেত্রে সেই কর্মীকে অ্যামাজন ওয়ারহাউজ থেকে প্যাকেজ নিয়ে গ্রাহকের বাড়িতে পৌঁছে দিতে হবে। বর্তমানে করোনাকালীন পরিস্থিতিতে এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে অফলাইন কেনাকাটার থেকেই মানুষ অনলাইন কেনাকাটার ঝুঁকছেন।

তার ফলে অ্যামাজনের থেকে কেনাকাটা প্রবণতা জন সাধারণের বাড়ছে। দেশে অনলাইন কেনাকাটার চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে ডেলিভারি বয়ের চাহিদাও বাড়ছে। অ্যামাজনের সংস্হা থেকে বলা হচ্ছে একজন ডেলিভারি বয়কে দিনে ১০-১৫ কিলোমিটারের মধ্যে ১০০ থেকে ১৫০ টি ডেলিভারি প্যাকেজ ডেলিভারি দিতে হচ্ছে.। তবে অ্যামাজন সংসার থেকে বলা হচ্ছে এই কাজের জন্য সেরকম কোনো নির্দিষ্ট সময় দেওয়া হচ্ছে না। সবটাই নির্ভর করে ডেলিভারি বয়ের উপর । সে কতটা সময়ের মধ্যে নিজের কাজ সম্পন্ন করতে পারছে ।

দিল্লিতে দেখা গেছে ডেলিভারি কর্মীরা চার ঘণ্টার মধ্যেই ১০০-১৫০ প্যাকেজ ডেলিভারি করেন । উল্লেখ্য অ্যামাজন সকাল ৭ টা থেকে রাত ৮টা অবদি ডেলিভারি করে। ফলে দিন দিন অনলাইন কেনাকাটা চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে সংস্থার তরফ থেকে আরও ডেলিভারি বয়ের চাহিদা বাড়ছে। https://logistic.amazom.in/applynow এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে যেকোন আগ্রহী ব্যক্তি অ্যামাজনে কর্মী হিসেবে আবেদন করতে পারেন।

তবে ডেলিভারি বয়ের জন্য এই ওয়েবসাইটের শুধুমাত্র আবেদন করলে চলবে না। তার জন্য একজন একজন আবেদনকারীর উপযুক্ত পড়াশোনার ডিগ্রী থাকা প্রয়োজন। আবেদন করার সময় স্কুল এবং কলেজের সার্টিফিকেট দেখাতে হবে। আবেদনকারীর নিজস্ব স্কুটার এবং বাইক থাকা প্রয়োজন। উল্লেখ্য তার ড্রাইভিং লাইসেন্স থাকাও বাধ্যতামূলক।