সিনিয়র সিটিজেনদের জন্য দুর্দান্ত সুখবর!এই সরকারি প্রকল্পে মিলবে সরাসরি ৭.৪ শতাংশ রিটার্ন, বিস্তারিত জানতে

সারা জীবনের অর্জিত সঞ্চয় অবসরপ্রাপ্ত জীবনে যাতে কাজে লাগে তার জন্যই করা হয়ে থাকে ফিক্সড ডিপোজিট । তাই যখনই এই এফ ডির সুদ কমতে থাকে তখনই চিন্তায় পড়ে যান সিনিয়র সিটিজেনরা। কোভিড কালে সারা বিশ্বের সাথে সাথে ভারতের অর্থনৈতিক পরিকাঠামো নিম্নগামী হচ্ছে, তার ফলে অন্য সব দেশের মতো ভারত ও সিদ্ধান্ত নিয়েছে সুদ কমানোর। ফলে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়ছেন প্রবীণ নাগরিকরা। তাই প্রবীণ নাগরিকদের সুবিধার্থে চালু করা হচ্ছে সিনিয়র সিটিজেন সেভিংস স্কিম ,যা অন্ধকারে আশার আলো দেখাচ্ছে।

সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে প্রবীণ কিংবা বয়স্ক নাগরিকেরা চাইলেই সরকারি এই প্রকল্পে বড় অঙ্কের টাকা জমাতে পারবেন এই প্রকল্পে সিনিয়র সিটিজেনরা বছরে ৭.৪ শতাংশ সুদ পাবেন। এবার আসুন জানা যাক কারা এই প্রকল্পে অংশীভূত হতে পারবেন। ৫৫- ৬০ বছরের উর্ধ্বে যে কোন ব্যক্তি এই প্রকল্পে টাকা রাখতে পারবেন।এই প্রকল্পে কেবলমাত্র ভলেনন্টারি রিটারমেন্ট নিলে তবেই তারা বিনিয়োগ করতে পারবেন । আরও জানা যাচ্ছে ৫০ এর উপর অবসরপ্রাপ্ত সেনা জওয়ানরাও এই প্রকল্পের সুবিধা পেয়ে থাকবেন।

তবে এই প্রকল্পে অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে গ্রাহককে কমপক্ষে ১০০০ টাকা জমা রাখতে হবে এবং এই স্কিমে আমানতকারীরা সর্বোচ্চ ১৫ লক্ষ টাকা রাখতে পারবেন। ব্যাংকের তরফ থেকে এই স্কিমের জন্য স্ত্রীর সঙ্গে জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট খোলার সুবিধা দেওয়া হয়ে থাকবে।

বছরের এপ্রিল জুলাই-অক্টোবর এবং জানুয়ারি মাসের প্রথম বিজনেস ডেতে সুদ পাবেন গ্রাহকরা। অন্যান্য সেভিং স্কিম এর তুলনায় অনেক বেশি রিটার্ন দিচ্ছে এই প্রকল্প ।বছরে প্রায় ৭.৪ শতাংশ সুদ পাওয়া যাচ্ছে। এই প্রকল্পের ম্যাচিউরিটি মেয়াদ পাঁচ বছর, ৫ বছর পর আবার ৩ বছরের জন্য স্কিম এর মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে। তবে কোনো কারণে যদি দু বছরের আগেই গ্রাহক অ্যাকাউন্টটি বন্ধ করতে চান তবে সেক্ষেত্রে জরিমানা স্বরূপ ১.৫ শতাংশ কেটে নেবে কর্তৃপক্ষ। এই প্রকল্পে আরও বলা হয় থাকছে দু’বছর অ্যাকাউন্ট চালানোর পর তা বন্ধ করে দিলে গ্রাহকদের দিতে হতে পারে ১ শতাংশ জরিমানা।