পুজোর আগেই সরকারি কর্মচারীদের জন্য দুর্দান্ত সুখবর, পেনশন নিয়ে বড়োসড়ো ঘোষণা মমতা সরকারের

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে দেশ তথা বিভিন্ন রাজ্যের আর্থিক অবস্থা কিছুটা দুর্বল হয়ে পরেছে। কারণ বিভিন্ন রাজ্যের আয় খানিকটা কমেছে। তা সত্ত্বেও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারি অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের জন্য সুখবর ঘোষণা করলেন। পূজোর শুরুতেই এমন ঘোষণা অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের মনে অনেক আশার আলো জাগিয়েছে। অর্থ দপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে ২০১৫ সালের ৩১-এ ডিসেম্বর ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সরকারি কর্মীদের পেনশন যা ছিল তা থেকে ২.৫৭ গুণ বাড়ানো হচ্ছে এবার।

ষষ্ঠ বেতন কমিশন অনুযায়ী পেনশন বাড়ানো হচ্ছে সরকারি কর্মীদেরও উল্লেখ্য ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশ মেনে রাজ্য সরকারি কর্মীদের নতুন বেতন কাঠামো ঘোষণা করেছে নবান্ন।অর্থ দপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে ২০১৫ সালে ৩১ শে ডিসেম্বর সরকারি অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পেনশন যাচ্ছিল তার থেকে ২.৫৭ গুণ বাড়ানো হচ্ছে।অর্থাৎ ২০১৫ সালের ৩১ শে ডিসেম্বর ৪৪১০ টাকা পেলে তা ২.৫৭ গুণ বেড়ে ১১হাজার ৩৩৪ টাকা হবে তা রাউন্ড অফ করে ১১ হাজার ৪০০ টাকা হবে।

এছাড়া আরও বলা হয়েছে পেনশন প্রাপকদের বয়স ৮০ থেকে ৮৫ বছরের মধ্যে হলে বর্ধিত বেতনের উপর আরো ২০% অতিরিক্ত অর্থ মিলবে। বয়স ৮৫ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে হলে বর্ধিত বেতনের উপর আর ৩০% অতিরিক্ত পাবেন।অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের বয়স ১০০ বছর পেরিয়ে গেলে বর্ধিত পেনশন কাঠামোর উপর অতিরিক্ত ১০০% পেনশন পাবেন তারা।

গত কয়েকদিন আগে নতুন করে ষষ্ঠ বেতন কমিশনের মেয়াদ বৃদ্ধি করেছে সরকার। যদিও অন্যান্য রাজ্যের কর্মচারীরা যেখানে সপ্তম বেতন কমিশন অনুযায়ী বেতন পেয়ে থাকেন সেখানে আমাদের রাজ্যের কর্মচারীরা ষষ্ঠ বেতন কমিশন অনুযায়ী কিছুটা হলেও কম বেতন পাচ্ছেন।এই নিয়ে ক্ষুব্দ রাজ্য সরকারের কর্মী এবং অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের একাংশ। আর এই উৎসবের মরসুমের আগে পেনশন নিয়ে বড়োসড়ো সিদ্ধান্তের কথা জানান নবান্ন।

দেরিতে হলেও অবশেষে পারিবারিক পেনশন নিয়ে বড়োসড়ো ঘোষণা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নবান্ন থেকে।আজ বৃহস্পতিবার নবান্নের তরফে এই সংক্রান্ত নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে।আগামী মাস থেকে নয়া সিদ্ধান্ত কার্যকর হতে চলেছে।মনে করা হচ্ছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই সিদ্ধান্তে উপকৃত হবেন রাজ্যের কয়েক লক্ষ অবসরপ্রাপ্ত কর্মীরা। তিনি আরও বলেছিলেন রাজ্যের আর্থিক অবস্থার উপর চাপ পড়লেও তা এই ব্যাপারও জরুরী।যতটা সম্ভব তিনি সাধারণ মানুষের পাশেও থাকবেন।গত বছর তিনি করোনা পরিস্থিতিতে সমস্ত কর্মচারীদের পুজোর বোনাস দিয়েছিলেন,এই বছরও তা দিতে পারেন আশা করছেন সরকারি কর্মচারীরা।