স্বদেশী আকাশ মিসাইলের জন্য 5000 কোটি টাকার অনুমোদন মঞ্জুর করল কেন্দ্র সরকার..

কাশ্মীর থেকে অনুচ্ছেদ 370 বাতিল করা পর থেকেই পাকিস্তান যেন ক্ষেপে উঠেছে, যার দরুন তারা ভারতে বারবার পরমাণু হামলা ও যুদ্ধের হুমকি দিয়েই চলেছে। যদিও পাকিস্তানের দেওয়া এই হুমকির ফলে ভারতের কোন যাই এসে যায় না। তবে এবার যে খবরটি বেরিয়ে আসছে সেটি শুনে হয়তো পাকিস্তানের রাতের ঘুম উড়ে যেতে পারে। কারন ভারত সরকারের তরফ থেকে ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তিকে বাড়াতে আরও এক বড় সিদ্ধান্ত নেওয়া হল।

এবার কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে শত্রুর যুদ্ধবিমান কে ধ্বংস করতে 5000 কোটি টাকার আকাশ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম ক্রয় করার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা বাহিনীকে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে সুরক্ষা ক্যাবেনিটে কমিটি সম্প্রীতি এই প্রোজেক্টকে সবুজ সিগন্যাল দিয়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রালয় বৃহস্পতিবার সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে বায়ুসেনাকে অবগত করায়।

শত্রুদের যুদ্ধবিমান কে ধ্বংস করতে ও ভারতীয় বায়ুসেনার শক্তিকে আরও অনেক গুন বাড়াতে সরকার ছয়টি স্কোয়াড্রান স্বদেশী আকাশ আর ডিফেন্স সিস্টেম কিনার জন্য মঞ্জুরি দিয়ে দিয়েছেন আপাতত। তবে সূত্রের খবর থেকে জানতে পারা গেছে আকাশ মিসাইল কে কেনার জন্য তিন বছরের পুরনো প্রস্তাবকে মঞ্জুরী দেওয়া হয়েছে। এবার ভারতীয় বায়ুসেনা কাছে আকাশ মিসাইলের সংখ্যা বেড়ে হতে চলেছে 15 টি। তবে প্রথম দিকে ভারতীয় বায়ুসেনা তরফ থেকে দুটি স্কোয়াড্রনের দাবি করা হয়েছিল তবে এই স্কোয়াড্রনের ক্ষমতার কথা মাথায় রেখে তার সংখ্যা পরে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

গত বছর সূর্য লুঙ্কা যুদ্ধভ্যাসের সময় ইজরাইলি মিসাইল এবং অন্য মিসাইলের সাথে বায়ুসেনা আকাশ মিসাইলেরও পরীক্ষা করেছিল, আর সেই মিসাইল গুলোর মধ্যে আকাশ মিসাইল সর্বশ্রেষ্ঠ ছিল। তাই এবার প্রতিরক্ষা মন্ত্রালয়ের তরফ থেকে বিদেশী মিসাইল গুলোর তুলনায় স্বদেশী মিসাইল গুলোকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। সরকার আকাশ মিসাইলের পক্ষে ইতিমধ্যেই 17 হাজার কোটি টাকার টেন্ডার খতম করে দিয়েছে। এবার এই স্বদেশী বিধ্বংসী মিসাইল গুলোকে চীন আর পাকিস্তানের সীমান্তে মোতায়েন করা হবে জানতে পারা গেছে।

তবে বালাকোট ঘটনার পর থেকেই ভারতের কাছে এই মিসাইলগুলোর গুরুত্ব আরো অনেকগুণ বেড়ে গেছে।আর তারপরই বায়ুসেনার তরফ থেকে এই প্রস্তাবকে মঞ্জুর করা হয়েছে। শুধু তাই নয় আরো জানতে পারা যাচ্ছে আকাশ মিসাইল ভারতের কাছে থাকলে আগামী দিনে পাকিস্তান ও ভারতের দিকে চোখ তুলে তাকাতে পারবে না।কারণ এবার শুধু তাদের ভারতীয় বায়ুসেনারই মুখোমুখি হতে হবে না সাথে মুখোমুখি হতে হবে এই বিধ্বংসকারী মিসাইলগুলির ও।

Related Articles

Close