প্রবীণ গ্রাহকদের জন্য সুখবর !এখন আরো সহজ হল পোস্ট অফিসের PPF এর টাকা তোলা, জানুন বিস্তারিত

প্রবীণ নাগরিকদের কথা চিন্তা করে এখন আর ও বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে ইন্ডিয়ান পোস্ট অফিস।৬০ বছরের উর্ধ্বে বয়স হলে পোস্ট অফিসে আর যেতে হবে না। বাড়িতে বসেই পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড তথা পিপিএফ ও সিনিয়র সিটিজেন সেভিংস স্কিম এর টাকা আমানতকারীরা এখন সহজেই তুলতে পারবেন। বিশেষ করে বয়স্ক পেনশনারদের কথা মাথায় ভেবেই এই ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সম্প্রতি নতুন এই সুবিধার কথা ঘোষণা করেছে ইন্ডিয়া পোস্ট।যেখানে বলা হয়েছে, প্রবীণ নাগরিকরা চাইলেই টাকা তোলার জন্য অনুমোদিত কোন ব্যক্তি কে পোস্ট অফিসের শাখায় পাঠাতে পারেন। সব পোস্ট অফিসে এই ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাবেন সিনিয়র সিটিজেন রা। অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় বয়স জনিত রোগের কারণে, পোস্ট অফিসে যেতে পারেন না প্রবীণ নাগরিকেরা। টাকা তোলা বা মেয়াদের আগে একাউন্ট বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিলেও তা করতে পারেন তাঁরা।

কিভাবে অনুমোদিত ব্যক্তি কে পাঠিয়ে পাবলিক প্রভিডেন্ট ফান্ড ও সিনিয়ার সিটিজেন্স সেভিংস স্কিম এর টাকা তুলতে পারবেন প্রবীণ নাগরিকেরা চলুন দেখে নেওয়া যাক এক নজরে :-

১) এই ধরনের সুবিধা পেতে গেলে এস বি – ১২ আবেদনপত্রে স্বাক্ষর করতে হবে সিনিয়র সিটিজেন কে। কেবলমাত্র স্বাক্ষর জ্ঞান সম্পন্ন প্রবীণ নাগরিকেরা এই ধরনের সুবিধা পেতে পারেন। পরবর্তীকালে প্রবীণ নাগরিকদের উত্তরাধিকারী ওই ফর্মে সই করে কাউকে অনুমোদিত ব্যক্তি হিসেবে পোস্ট অফিসে পাঠাতে পারেন।

২) পোস্ট অফিসের একাউন্ট হোল্ডার হলে এস বি- ৭ ও এস বি -৭বি লাগবে সিনিয়র সিটিজেনদের। এই দুই ফরমের মাধ্যমে মেয়াদের আগে অ্যাকাউন্ট বন্ধ ও আংশিক টাকা তোলার অনুমতি দেওয়া হবে প্রবীণ নাগরিকদের।

৩) নিজে না গিয়ে অনুমোদিত ব্যক্তিকে দিয়ে টাকা তোলা তে অ্যাকাউন্ট হোল্ডার এর সেল্ফ অ্যাটেস্টেড পরিচয় পত্র ও ঠিকানার প্রমান পত্র লাগবে। এই দুই প্রামাণ্য নথি অথরাইজ পার্সন এর ক্ষেত্রেও লাগবে।

৪) টাকা তোলার ক্ষেত্রে ওই প্রবীণ নাগরিক কে তার পাসবুক পোস্ট অফিসে জমা দিতে হবে।

৫) লেনদেন করার আগে প্রবীণ নাগরিক এর স্বাক্ষর মিলিয়ে দেখবেন পোস্ট অফিসের কর্মীরা।তবেই টাকা তোলার অনুমতি পাবেন গ্রাহকরা।

মূলত পোস্ট অফিসে পি পিএফ এর ও এস সি এস এস এর প্রতি বেশি বিনিয়োগ থাকে প্রবীণ নাগরিকদের। সাধারণের থেকে বেশি সুদ ও পোস্ট অফিসে সরকারি সুরক্ষার নিশ্চয়তা থাকায় ইন্ডিয়া পোস্টের দিকে ঝোঁকেন তাঁরা।