পড়ুয়াদের জন্য বেরিয়ে এলো সুখবর! মমতার সরকার দিচ্ছে তিনটি নতুন বৃত্তি, শুরু আবেদন…

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নতুন বৃত্তি দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে পড়ছে জৈন,শিখ, খ্রিস্টান, মুসলিম, বৌদ্ধ এবং পার্সি। এই সমস্ত সম্প্রদায়ের পড়ুয়ারা ভবিষ্যতে যাতে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে তার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে। 1 আগস্ট থেকেই পড়ুয়ারা এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই বৃত্তি দেওয়া হবে প্রথম থেকে দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের, একাদশ থেকে পিএইচডি কোর্স এবং পেশাদারি ও কারিগরি কোর্স এর পড়ুয়ারাও এই বৃত্তি পাবে।

এই তিনটি ধাপের স্কলারশিপ কে আলাদা আলাদা নাম দেওয়া হয়েছে। প্রথম থেকে দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের জন্য এই স্কলারশিপ এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘প্রি-ম্যাট্রিক স্কলারর্শিপ’। এই বৃত্তিতে পড়ুয়াদের বছরে 1100 টাকা থেকে শুরু করে 11 হাজার টাকা পর্যন্ত দেওয়া হবে। তবে একটা কথা মনে রাখতে হবে পড়ুয়ার বাড়ির বার্ষিক আয় যদি দু লক্ষ টাকা পর্যন্ত হয় এবং পড়ুয়াকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠানে পড়ে তাহলেই এই বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। এরপর একাদশ থেকে পিএইচডি কোর্স পর্যন্ত পড়ুয়াদের বৃত্তির নাম দেওয়া হয়েছে ‘পোস্ট ম্যাট্রিক স্কলারশিপ’।

যে সমস্ত পড়ুয়ারা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠানে পড়ার পাশাপাশি উচ্চমাধ্যমিক, আইটিআই, ডিপ্লোমা, স্নাতক, স্নাতকোত্তর, বিএড ইত্যাদি করছে পড়াশোনা করছেন তাদের জন্য এই স্কলারশিপ। এই বৃত্তির দরুন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে 16,500 টাকা পর্যন্ত দেওয়া হবে প্রতি বছরে। পেশাদারী এবং কারিগরি বিভাগের পড়ুয়াদের যে বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে তার নাম দেওয়া হয়েছে ‘মেরিট কাম মিনস স্কলারশিপ’।এক্ষেত্রে পড়ুয়াদের পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হওয়া বাধ্যতামূলক এর পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বীকৃতি প্রতিষ্ঠানে পড়েতে হবে।

এছাড়াও যারা পশ্চিমবঙ্গ বা বাইরে থেকে এনআইটি, আইআইএম, এনাইএফটি, আইআইটি তষমতো কোর্স করছেন তারাও আবেদন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে তাদের পরাবারে বার্ষিক আয় 2.5 লক্ষের মধ্যে থাকতে হবে। এই বৃত্তির আরেকটি বিশেষ সুবিধা দেওয়া হয়েছে পড়ুয়াদের। তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়াদের টিউশন ফি পরিশোধ করা হবে। এই তালিকা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে www.wbmdfc.org এই ওয়েবসাইটে দেওয়া হয়েছে। এই বৃত্তিতে আবেদন করার জন্য কিছু শর্ত দেওয়া হয়েছে সরকারের তরফ থেকে।

প্রথমত আবেদনকারীকে পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হওয়া বাধ্যতামূলক। আবেদনকারীকে শেষ পরীক্ষাতে কমপক্ষে 50 শতাংশ নম্বর পেতেই হবে। আবেদন রেজিস্ট্রেশনের পড়ুয়া একটি মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করতে পারবে। কিন্তু প্রি-ম্যাট্রিক স্কলার্শিপের ক্ষেত্রে একটি মোবাইল নম্বর থেকে সর্বোচ্চ দুটি আবেদন করা যাবে। আবেদন করার পর ঐ আবেদনপত্রের প্রিন্ট আউট করে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে জমা দিতে হবে পড়ুয়াকে। ব্যাংকের পাস বুকের ফটোকপি সহ অ্যাকাউন্ট নাম্বার এবং আইএফএসসি কোড সমস্ত কিছু জমা দিতে হবে আবেদনপত্র। আবেদনপত্র জমা দেওয়ার তারিখ শুরু হয়েছে আগস্ট মাসের 1 তারিখ থেকে এবং আবেদনপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ 15 অক্টোবর 2020। আর যেসমস্ত ছাত্রছাত্রীরা 2019-20 মধ্যে স্কলারশিপ পেয়েছে তারা কেবলমাত্র রিন্যুয়েল করতে পারবে।