PUBG খেলতে গিয়ে প্রেম, বিপাকে যুবতী

আমরা নানান সময়ে নানান রকমের প্রেমের গল্প শুনে থাকি। কখনো কোন প্রেমের গল্প শুনে ভীষণ ভালো লাগে, তো কখনো কখনো খারাপ। সমস্ত প্রেমের গল্প গুলির মধুময় হয় তা কিন্তু নয়, অনেক সময় অনেক প্রেমের গল্প অনেক মানুষকে ব্যথিত করে তোলে। আজকাল প্রেম জিনিসটা এতই সহজ যে একে অপরের সাথে দেখা করা কিংবা কথা বলা অথবা আলাপ পরিচয় হওয়া খুব একটা বিশাল কোন ব্যাপার নয়। বিভিন্ন মাধ্যম থেকে একটা ছেলে এবং একটা মেয়ের সাক্ষাৎ হতে পারে, কিন্তু সেই সাক্ষাৎতের পরে, সম্পর্কটা কতদূর তবে সেটা অনেক সময় অনেকে ভেবে পান না, কিন্তু সময়ের সাথে চলতে চলতে সেই সম্পর্কটা এমন জায়গায় পৌঁছে যায় যার ফলে হতে পারে যে কারোর পক্ষে বিপদ। এরকমই একটা প্রেমের গল্প শোনা গেল।

পাবজি‌ খেলতে খেলতে একটি ছেলের সঙ্গে একটি মেয়ের সম্পর্ক তৈরি হয়। পাবজি গেমে পরিচয় হওয়ার পর ছেলেটি এবং মেয়েটির কথা হয় ফেসবুকে। এরপরে দীর্ঘদিন ধরে কথা চলতে চলতে দুজনের মধ্যে একটি সম্পর্ক তৈরি হয়। মেয়েটি ছেলেটির প্রেমে পাগল হয়ে সে বাড়ি ছেড়ে পায়ে হেঁটে পৌঁছে যায় ইউপির ফিরোজপুর জেলায়। মেয়েটি পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা এবং সে ১৫৫০ কিলোমিটার হেঁটে প্রেমিকের সাথে দেখা করার জন্য পৌঁছে যান ফিরোজাবাদ। ছেলেটি এবং মেয়েটির দুজনে আলাদা জাতের। ছেলেটির নাম অজয় কুমার এবং তিনি ফরিদাবাদ জেলার বাসিন্দা।

ওই ছেলেটি মেহেন্দি লাগানোর কাজ করে। মাঝে মাঝে তিনি মেহেন্দি লাগানোর কাজে যেতেন পশ্চিমবঙ্গে , এরপর মেয়েটি ছেলেটির প্রেমে এতটাই পাগল হয়ে যায় যে সে বাড়ি ছেড়ে সেই ছেলেটির সঙ্গে চলে যায় ফিরোজাবাদ এবং সেখানে এক মাস ধরে একে অপরের সঙ্গে বসবাস করছিলেন। কিন্তু মেয়েটির পরিবার যখন এই সমস্ত ঘটনাটি জানতে পারে তারা থানায় একটি এফআইআর দায়ের করেন। মেয়েটি নাবালিক হওয়ার কারণে জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের কাছে গিয়ে মেয়েটিকে বাঁচানোর আবেদন করা হলে পুলিশের তরফ থেকে এই বিষয়ে তদন্ত শুরু করা হয়।

পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ ফিরোজাবাদের পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে এবং মেয়েটিকে খুঁজে বার করা হয়। বৃহস্পতিবার ওই নাবালিকা মেয়েটিকে খুঁজে বের করে মেডিকেল করানো হয় এবং ছেলেটিকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়। এই ব্যাপারে ফিরোজাবাদের এসিপি মূকেশ চন্দ্র মিত্র মিডিয়াকে জানান,” যখনই পশ্চিমবঙ্গের পুলিশের কাছ থেকে খবর আসে যে মেয়েটিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, তারপর থেকেই আমরা কঠোরভাবে পদক্ষেপ নি এবং মেয়েটিকে খুঁজে বের করি”।