ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে তালিকায় কী রয়েছে ঘোরার প্ল্যান? ঘুরে আসতে পারেন এই তিনটি জায়গায় বাজেট থাকবে আপনার সাধ্যের মধ্যেই

দিন সাতেকের ছুটিতে কোথায় যাবেন ভেবে পাচ্ছেন না? আপনার জন্য রইল সেরা তিন জায়গার হদিশ। দেখে নিন

তীর্থান ভ্যালি, হিমাচল প্রদেশ
হিমাচল প্রদেশের কুলু জেলায় অবস্থিত তীর্থান ভ্যালি৷  পাশ দিয়ে বয়ে চলেছে তীর্থান নদী। ভিড়ভাট্টা এড়িয়ে, নির্জনতা যদি  আপনার ভাল লাগে তবে এই উপত্যকা আপনার জন্য একেবারে আদর্শ।  নানা রকমের পাখির কলতান আর  রোলা গ্রাম থেকে দৃশ্যমান অপরূপ জলপ্রপাত।  সেরোলসার হৃদ এবং রঘুপুর দুর্গ অবশ্যই যাবেন৷  সেরোলসার হৃদকে ঘিরে রেখেছে  দেবী বুদ্ধি নাগিনের বহু প্রাচীন মন্দির। স্থানীয়দের বিশ্বাস, দেবী খুব জাগ্রত। ওখান থেকে একটু এগিয়ে  রঘুপুর কেল্লা। তীর্থানের মূল আকর্ষণ ‘হিমালয়ান ন্যাশানাল পার্ক’। ওই জাতীয় উদ্যানের তিন দিক ঘিরে রয়েছে হিমালয়।  ১৮১ ধরনের পাখি, ৩১ ধরনের পশু এবং নানা প্রকারের গাছ-গাছালিতে মন ভরে উঠবে৷

তীর্থান ভ্যালি, হিমাচল প্রদেশ

আলিবাগ, মহারাষ্ট্র
যদি পাহাড় ভাল না বাসেন তবে যেতেই পারেন মহারাষ্ট্রের আলিবাগ বিচে। মুম্বই থেকে যেতে সময় লাগে তিন ঘণ্টার মতো। মনোরম পরিবেশ, সমুদ্রের গর্জন আর ভালবাসার মানুষের হাতে হাত– প্রেমের মাসে আপনার জন্য একেবারে ‘পিকচার পারফেক্ট’। আলিবাগের অনতিদূরেই রয়েছে ভারসোলি বিচ, কাশিদ বিচ, কিহিম বিচ। কিহিম আলিবাগ শহর থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে। আরবসাগরের নোনা গন্ধ, নারকেল গাছের মিঠে হাওয়ায় মন ভালো হবেই৷ গোটা বিচ জুড়েই ছড়িয়ে রয়েছে ঝিনুক। আলিবাগের খুব কাছেই ঐতিহাসিক কোলাবা দুর্গ৷  মহারাষ্ট্রে শিবাজি মহারাজের সময়কালে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করত এই কেল্লা। এছাড়াও রয়েছে মুরুদ গ্রামের পাশে এক দ্বীপে অবস্থিত মুরুদ জাঞ্জিরা দুর্গ।

 

কোদাইকানাল, তামিলনাড়ু

২ হাজার ১৩৩ ফুট উঁচুতে এই জায়গার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মনোমুগ্ধকর৷  ১২ বছরের একবার ফোটে কুরিঞ্জি ফুল এখানে দেখতে পাওয়া যায়। কোদাইকানালের অন্যতম আকর্ষণ ‘পিলার রকস’। রহস্যে ঘেরা ওই জায়গা সুন্দর এবং ভয়াবহ৷ কোদাইকানালের আর এক আকর্ষণ ডেভিলস কিচেন বা গুনা কেভস। কাদা ভর্তি গুনা গুহায় এখন ঢুকতে দেওয়া হয় না, তবে দেখতে পারবেন বাইরে থেকে৷  কোদাই লেকে বোট রাইড, আর কোদাই চিজ-চকলেট বাড়তি আনন্দ যোগ করবে।