আবারও বড়সড় ভাঙন শাসক দল তৃণমূলে! দল ছাড়লেন চার প্রভাবশালী নেতা, যোগ দিলেন BJP তে

রাজ্য রাজনীতিতে বয়ছে এখন বেসুরো হাওয়া। তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীরা এক এক করে গিয়ে জমায়েত হচ্ছেন গেরুয়া শিবিরে। এর আগে আমরা দেখেছি প্রাক্তন পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, যশ দাশগুপ্ত, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় একে একে গিয়ে ভিড় করছেন পদ্ম মহলে। গতকাল অর্থাৎ ২ মার্চ আসানসোলের প্রাক্তন মেয়র তথা পাণ্ডবেশ্বরের তৃণমূল বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেন। আজকে তৃণমূলে আবারো কয়েকটি তারা খসে গেল। দল ছাড়লেন বিধাননগরের মেয়র ইন কাউন্সিলার দেবাশিস জানা।

 

আজ বুধবার ৩ মার্চ আজও আবার দিদির দলে দেখা দিল ভাঙ্গন। বিধাননগরের মেয়র ইন কাউন্সিল দেবাশিস জানা দল ত্যাগ করলেন। তবে শুধু দেবাশীষ জানা নন তাঁর সাথে আসানসোলের আরও তিনজন কাউন্সিলার দল ছাড়লেন। এদের হাতে বিজেপির পতাকা তুলে দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

কিছুদিন আগেই থেকেই দেখছি তৃণমূলের শাসক দলে বইছে বেসুরো হাওয়া। অনেক হেভিওয়েট তৃণমূল নেতারা পা বাড়াচ্ছেন গেরুয়া শিবিরের দিকে। এই ব্যাপারে ভারতীয় জনতা পার্টি ঘোষণা করেছিল যে তাঁরা তৃণমূলের বড় মাপের নেতাদের আর দলে নেবে না। কারণ তাঁরা চায় না যে বিজেপি টা বি-টিএম হয়ে যাক। তারপর এটাও ভারতীয় জনতা পার্টির জানিয়েছিল যে কিছু তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর তারা তাদের বিজেপিতে যোগদান করতে দিতে পারবে।

কিছুদিন আগে থেকেই জিতেন্দ্র তিওয়ারির বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছিল। প্রাক্তন পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী যখন বিজেপিতে যোগ দিলেন তখন তাঁর সাথে জিতেন্দ্র তেওয়ারির বিজেপিতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই বিষয়ে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বিরোধিতা করেন। তাই তখন জিতেন্দ্র তিওয়ারি বিজেপিতে যোগ দিতে পারেননি। অগত্যা তৃণমূলেই ফিরে আসতে হয়েছিল। এবার আলোচনার মাধ্যমে জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে দিলীপ ঘোষ বিজেপিতে নেন।

বাবুল সুপ্রিয় গ্রিন সিগন্যাল দিলেন বলেই জিতেন্দ্র তিওয়ারির বিজেপিতে যোগদান করা সম্ভব হল। কালকে বিজেপিতে যোগদান করেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি। বাবুল সুপ্রিয় বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আদর্শকে মেনে নিয়ে আমরা একসঙ্গে তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়তে প্রস্তুত।”