টেলিকম সেক্টরে এবার বিদেশি বিনিয়োগ, কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন টেলিকম নীতিকে স্বাগত Jio-র

কেন্দ্রীয় সরকারের নয়া পদক্ষেপ, টেলিকম নীতি নিয়ে এক বৈপ্লবিক সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেললো মোদী মন্ত্রিসভা। সবচেয়ে দৃষ্টান্তমূলক সিদ্ধান্ত হল এবার থেকে কোনরকম সরকারি অনুমোদন ব্যাতীত টেলিকম সংস্থাগুলো সম্পূর্ণ ১০০ শতাংশ বিদেশী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আর কোনরকম বিধি নিষেধ র‌ইল না। এই সিদ্ধান্ত কে যথার্থই স্বাগত জানিয়েছে মুকেশ আম্বানির কতৃত্বধীন জিও  (Jio Welcomes Reforms in Telecom Sector)। এই ঘোষণার পাশাপাশি টেলিকম সংস্থাগুলো কে স্বস্তি দিতে বিশেষ কিছু প্যাকেজ এর ও ঘোষণা করা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে এই সংস্থা জানিয়েছে ‘ কেন্দ্রের এই যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের ফলে ভারতীয় টেলিকম ক্ষেত্রের ভীত আরও মজবুতশালী হবে। বিবৃতিতে আরও জানানো হয়েছে এই ঘোষণার ফলে প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের ডিজিটাল ভারত গড়ার পিঁড়ি আরও সুগম হবে এবং পাশাপাশি সারা বিশ্বের ডিজিটাল দুনিয়ায় ভারতের নেতৃত্ব দেওয়ার স্থান আরও শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

প্রসঙ্গত এদিন‌ই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সভার অনুমোদন পেয়েছে টেলিকম নীতির এই সংস্কারি ছাড়পত্র। কেন্দ্রীয় তথ্য প্রযুক্তি এবং টেলিকম মন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব জানিয়েছেন , এবার থেকে টেলিটম ক্ষেত্রে ১০০ শতাংশ বৈদেশিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে (100 Percent FDI in Telecom Sector) সরকারি অগ্রিম অনুমোদন এর আর প্রয়োজন হবে না। এছাড়াও স্পেক্ট্রাম চার্জ এর সংশোধনী হার এবং এর পাশাপাশি একগুচ্ছ নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন তিনি।

Advertisements

জিও-র তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে ,‘ডিজিটাল বিপ্লবের সুফল ১৩৫ কোটি ভারতীয়র কাছে পৌঁছে দেওয়াই তাদের একমাত্র লক্ষ্য। ভারতীয়রা যাতে বিশ্বের যেকোন‌ও প্রান্ত থেকে সাধ্যের মধ্যে উচ্চমানসম্পন্ন এবং সর্বোচ্চ ডেটা সুবিধা পায় সেটাই নিশ্চিত করা তাদের একমাত্র লক্ষ্য।’ কেন্দ্রের এই নতুন নীতির কারণে গ্রাহকদের নতুন এবং আরও আকর্ষণীয় সুবিধা দেওয়া সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে জিও (jio)।

Advertisements

জিও-র তরফে আরও জানানো হয়েছে , ভারত সরকার এবং আরও অন্যান্য টেলিকম সংস্থা গুলোর সাথে একযোগে কাজ করে প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের ডিজিটাল ভারত গড়ার লক্ষ্যে পৌঁছাতে চায় তারা। যাতে ভারতীয় অর্থনীতিতে এই সুফল কাজে লাগিয়ে ভারতীয় অর্থনৈতিক পরিকাঠামো আরও শক্তিশালী এবং সুদৃঢ় করার পাশাপাশি উপাদান ক্ষমতা বৃদ্ধি করে প্রতিটি ভারতীয় দের জীবনযাপন আরও সহজ হয়ে ওঠে।

এই প্রসঙ্গে রিলায়েন্স এর কর্ণধার মুকেশ আম্বানি (Mukesh Ambani) জানান, ‘ ভারতকে ডিজিটাল আর্থ-সামাজিক কাঠামোতে পরিনত করার জন্য এবং অর্থনৈতিক গতিকে আরও গতিশীল করার ক্ষেত্রে টেলিকম ক্ষেত্র‌ই সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। টেলিকম নীতিতে সংস্কার এবং এই টেলিকম ক্ষেত্রকে স্বস্তি দিতে কেন্দ্রীয় সরকারের একগুচ্ছ নতুন পদক্ষেপ কে আমি স্বাগত জানাই। এই সিদ্ধান্তের ফলে ডিজিটাল ভারত গড়ে তোলার লক্ষ্যপূরণে টেলিকম সংস্থাগুলো তাদের একনীষ্ট সাহায্য করবে’।