এই ৭টি কারণ যার জন্য শ্রীলংকার কাছে হারতে হল রোহিত শর্মার ভারতকে

এশিয়া কাপে গ্রুপ পর্যায়ে পাকিস্তানকে হারিয়ে যখন ভারত জুড়ে জয়ের উচ্ছ্বাস, ঠিক তার পরেই পরপর দুটো ম্যাচে পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কার কাছে হেরে গিয়ে কিছুটা হলেও কনফিডেন্স লেভেল কমে গেল ভারতের। এশিয়া কাপে সুপার ফোরের ম্যাচে শ্রীলঙ্কার কাছে ছয় উইকেটে হেরে গেল ভারত। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভারতবর্ষে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৭৩ রান করেছিল। শ্রীলংকা খেলতে নেমে ১৯.৫ ওভারে ৪ উইকেটে ম্যাচ শেষ করে দেয় এবং জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায়। কিন্তু কেন পরপর দুটি ম্যাচে হেরে গেল ভারত বিশেষত শ্রীলংকার কাছে?

প্রথমত তিন ওভারে লোকেশ রাহুল এবং বিরাট কোহলির উইকেট পড়ে যাওয়াতে কিছুটা হলেও মনোবল কমে যায় ভারতের। তখন ভারতের রান ছিল মাত্র ১৩। রাহুল ৬ রানে আউট হওয়ার পর ভারত আরও বড় ধাক্কা খায় যখন বিরাট কোহলি শূন্য রানে ফিরে যান প্যাভিলনে। অপরদিকে যাকে সবথেকে বিপদজনক মনে হচ্ছিল সেই রোহিত শর্মা যখন ১৩ তম ওভারে ৭২ রান করে ফিরে যান তখন ভারতের হার আরও কিছুটা নিশ্চিত হয়ে যায়।

রোহিত যদি আরো পাঁচ ওভার খেলতে পারতেন তাহলে নিঃসন্দেহে ভারত ২০০ রান করে ফেলতে পারত যা শ্রীলঙ্কাকে মানসিকভাবে চাপে রাখতে পারতো। অন্যদিকে সূর্যদেব যাদব ভালো খেললেও মাত্র ৩৪ রানে আউট হয়ে যান। হার্দিক পান্ডে এবং ঋষভ পান্থ মাত্র ১৭ রান করেন।

শ্রীলংকার বাঁ হাতি বোলার দিলশান মধুশঙ্ক, অফ স্পিনার মহিশ থিকসানা, ডান হাতি বোলার চামিকা করুণারত্নর সামনে খেলতেই পারেননি ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। তিনজনের বারো ওভারে ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা করতে পারেন মাত্র ৮০ রান। তিনজন বোলার ভারতবর্ষকে দেন মাত্র চারটি চার এবং দুটি ছক্কা।

শ্রীলঙ্কার দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যানকে বিন্দুমাত্র তলাতে পারেননি ভারতীয় বোলাররা। প্রথম ১০ ওভারেই ৮৯ রান তুলে শ্রীলঙ্কাকে অনেকটাই এগিয়ে দেন পাথুম নিসঙ্ক ও কুশল মেন্ডিস।

এদিকে ভুবনেশ্বর কুমার ছাড়া ভারতের কোনও বোলারই ভাল বল করতে পারেননি। অর্শদীপ সিংহ, হার্দিক পাণ্ড্য, যুজবেন্দ্র চহাল, রবিচন্দ্রন অশ্বিনরা প্রচুর রান দেন।

সর্বশেষ বলতে হয় দল নির্বাচন একেবারেই ঠিক হয়নি। ভালো বল করা সত্ত্বেও রবি বিষ্ণুইকে এই ম্যাচে অজ্ঞাত কারণে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়।