ভারতীয় সেনা দ্বারা করা পাঁচটি মারাত্মক গোপন অভিযান যেগুলি জানলে গর্ববোধ করবেন একজন ভারতীয় হিসাবে।

পাকিস্তানে ঢুকে সার্জিক্যাল স্টাইক চালায় ভারতীয় সেনা। খতম করা হয় ২৫ টি সেনা এবং ৪০ জন জঙ্গীকে। শুধু তাই নয় জঙ্গিদের সাথে সাথে সাতটি লঞ্চ প্যাড কেউ ধ্বংস করে দেয় ভারতীয় ফোর্স। ভারতীয় সেনার বিবরণ থেকে জানা যায়, ভারতীয় সেনা পাকিস্তানের বর্ডার এর ২ কিমি ভেতরে ঢুকে এই অভিযান চালিয়েছিল। ভারতের পক্ষ থেকে পাকিস্তানকে অনেকবার জঙ্গিদের আশ্রয় না দেওয়ার বার্তা দেওয়া হলেও, তা কখনোই মানেনি পাকিস্তান । তাই এই সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের কথা চিরজীবন মনে রাখবে পাকিস্তান। যদিও এর আগে অনেকবার ভারতীয় সেনা পাকিস্থানে গুপ্ত অভিযান চালিয়েছে   তাহলে দেখে নেওয়া যাক অভিযানগুলি,

(১) অপারেশন মেঘদুত (১৯৮৪ সাল ) : সিমলা চুক্তি অনুযায়ী সিয়াচেন শহরটি পাকিস্তান এবং ভারতের সম্পদ কিন্তু পরবর্তীকালে যখন পাকিস্তান এই শহরটি নিজের দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে, তখন ভারতীয় সেনা গোপনে মেঘদুত নামক অপারেশন চালিয়েছিল।

(২) অপারেশন পবন (১৮৮৭ সাল ): যখন শ্রীলংকার সেনা এলটিটির জঙ্গিদের প্রতিরোধে ব্যর্থ হয় তখন ভারতীয় সেনা তাদের হাত বাড়িয়ে দেয়। এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে ৩ বছর কঠোর চেষ্টার ফলেই শ্রীলঙ্কায় আবার শান্তি ফিরে এসেছিল।

(৩) অপারেশন ক্যাকটাস (১৮৮৭ সাল): তামিলের একটি ফেডারেশন অভ্যুত্থানের চেষ্টা করলে , ভারতের প্রেসিডেন্ট ভারত থেকে এক প্যারাসুট বিমানমেল দ্বারা সৈন্যদের পাঠানো হয় এই মিশন কে অপারেশন ক্যাকটাস নাম দেওয়া হয়।

(৪) অপারেশন বিজয় (১৯৯৯ সাল ) : গত ১৯৯৯ সালে পাক সেনারা কাশ্মীরে ঢুকে টাইগার হিল দখল করে নেয়। সে সময় ভারতীয় সামরিক সেনা কঠোর পরিশ্রম করে এবং দেশের জন্য প্রাণ দিয়ে তাদেরকে টাইগার হিল থেকে বিতাড়িত করে, এবং এই কাজে শহীদ হয়েছিল ভারতীয় বহু সেনাও।

(৫) অপারেশন ব্লাড টর্নেডো (২০০৮ সাল ) :মুম্বাই জঙ্গি হামলার পর গোপনে ভারতীয় সৈন্য বাহিনী এই অপারেশন চালায়। শুধু তাই নয় এর পরিপ্রেক্ষিতে  ব্ল্যাক টর্নেডো নামক সামরিক বাহিনী ৯ জন সাধারণ মানুষকে উদ্ধার করে। এছাড়া নামকরা তাজ হোটেল থেকে ৩০০ জন সাধারণ মানুষকে জঙ্গির কবল থেকে রেহাই   করে।

খবরটি আপনাদের কেমন লেগেছে তা আমাদের অবশ্যই জানাবেন। আরো এরকম নতুন নতুন খবর আপডেট পেতে চোখ রাখুন আমাদের ওই পোর্টালটিতে।