অবশেষে JEE Advanced 2021 এর পরীক্ষার দিন ঘোষণা করলো কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রক, আগামী অক্টোবর মাস থেকে

করোনা মহামারীর জন্য পিছিয়ে গেছে সমস্ত পরীক্ষা। প্রায় দীর্ঘ দেড় বছর ধরে বন্ধ রয়েছে দেশের বিভিন্ন স্কুল-কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি। মহামারীর মধ্যে এই বছরের JEE অ্যাডভান্স পরীক্ষাটি হতে চলেছে ৩ অক্টোবর। অবশেষে আইআইটি তে ভর্তির জন্য পরীক্ষার দিন ঘোষণা করলেন কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান। তবে কোভিড প্রটোকল মেনেই পরীক্ষা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রী।

দেশের মোট ২৩ টি আইআইটিতে ব্যাচেলার ইন্টিগ্রেটেড মাস্টার্স ও ডুয়েল ডিগ্রী কোর্সের ভর্তির মাধ্যম JEE অ্যাডভান্স। এছাড়াও সাতটি আঞ্চলিক সমন্বয়কারী যেমন আইআইটি খড়গপুর, আইআইটি কানপুর ,আইআইটি মাদ্রাজ, আইআইটি দিল্লী, আইআইটি বোম্বে, আইআইটি গোহাটি, ও আইআইটি রূরকী যৌথভাবে আয়োজন করে এই পরীক্ষার। এর আগে অবশ্য JEE এডভান্সের দিন ঘোষণা হয়েছিল ৩ জুলাই। কিন্তু কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ প্রবেশ করার পর বিষয়টি বিবেচনা করে স্থগিত করে দেওয়া হয়েছিল এই পরীক্ষা।

এ বছর প্রায় আড়াই লক্ষ পরীক্ষার্থী JEE মেইন Exam এ সফল হয়েছেন। সুতরাং এই সমস্ত পরীক্ষার্থী JEE অ্যাডভান্স এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। মূলত ২টি পেপারের এক্সাম হয় JEE অ্যাডভান্স এর।আইআইটিতে ভর্তি হওয়ার প্রাথমিক মাপকাঠি হলো পদার্থবিদ্যা ,রসায়ন ও অঙ্কর মধ্যে যেকোনো একটি ভাষা এবং দ্বাদশ শ্রেণীতে পরীক্ষার উত্তীর্ণ হতে হয়। এই বছর কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে ৭৫ শতাংশ যোগ্যতার মাপকাঠি সরানো হয়েছে।

JEE মেইন পরীক্ষার সময় মহারাষ্ট্রের যেসব ছাত্রছাত্রী সেসন ৩ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেননি তাঁদের আবারও সুযোগ দেওয়া হতে চলেছে। মূলত ভারী বৃষ্টি ও ভূমি ধসের কারণে কোলাপুর, পালঘর, রত্নাগিরি, রায়গর, সিন্ধুদূর্গ ও!সাতরার সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা ২৫ ও ২৭ শে জুলাই পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছতে পারেননি। তাদের ফের সুযোগ দেওয়া হতে চলেছে বলে জানান শিক্ষা মন্ত্রী।

এবছর ১৭ ই জুলাই রাজ্যে কোভিড বিধি মেনে জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল। করনা মহামারীর মধ্যে প্রথম এই পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রায় ৯২ হাজারেরও বেশি পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছিলেন। রেল ও মেট্রোর স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে পরীক্ষা হলে পৌঁছনোর পাশাপাশি পর্যাপ্ত বাস পরিষেবার ব্যবস্থা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জয়েন্ট পরীক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ সুবিধা হিসেবে এডমিট কার্ড দেখালেই স্পেশাল ট্রেনের ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছিল। মোট পরীক্ষা কেন্দ্র ছিল ২৭৪ টি করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের মধ্যে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা নেওয়াতে বদ্ধপরিকর কেন্দ্রীয় সরকার সেই বিষয়ে এদিন স্পষ্ট করে দেন শিক্ষা মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান।