ধরনাতেই বাজিমাত, দিলওয়ালে দুলহানিয়া নিয়ে গেলেন অনন্ত…

কিছু দাবি আদায় করার জন্য ধরনা দেওয়া এদেশের খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। রাজনৈতিক দল থেকে শ্রমিক সংগঠনের নেতা-নেত্রীদের দাবি দাবি না মানলে তারা ধরনা দিয়ে থাকেন। কিন্তু প্রেমের জন্য ধরনা? এমনটা হয়তো প্রথমবার হলো। অনেক সিনেমাতে আত্মহত্যা করার হুমকির দৃশ্য দেখা গেল ধরনা দেওয়ার দৃশ্য কখনো দেখা যায়নি।

এমনই অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটে গেল উত্তরবঙ্গের জলপাইগুড়ি জেলা ধুপগুড়ি গামে। তাদের 8 বছরের প্রেম ফিরে পেতে ধরনায় বসেছিল প্রেমিক। প্রেমিকের 24 ঘন্টা ধরনা দেবার পর অবশেষে তার হাতে আসে সাফল্য। সেই পুরোনো প্রেমিককে বিয়ে করলো প্রেমিকা। বিয়ে হল 8 বছরের রিলেশনশিপে থাকা যুবক যুবতীর।

 

তার পুরনো প্রেম ফিরে পেতে ধরনায় বসে ছেলেটির নাম অনন্ত বর্মন। আর প্রেমিকার নাম লিপিকা বর্মন। ধুপগুড়ি সারদা পল্লী এলাকায় কলেজপাড়া সামনে লিপিকা বর্মন এর বাড়ি। লিপিকার বাড়ির সামনে সোমবার ধরনায় বসে অনন্ত বর্মন। অনন্তকে ঘটনাস্থল থেকে সরাতে পুলিশ ও এসেছিল। পুরো ঘটনাটির ভিডিও ভাইরাল হতে বেশি সময় লাগেনি। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ে।

এলাকার খবর সূত্রে জানা গিয়েছে দীপিকা বর্মন এবং অনন্ত বর্মন এর মধ্যে দীর্ঘ আট বছরের প্রেমের সম্পর্ক। কিন্তু লিপিকার বাড়ি থেকে এই সম্পর্ক মেনে নেয়নি। লিপিকার পরিবার থেকে তার লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে চেয়েছিল। সেই সময় প্রেমিক লিপিকার পড়াশোনার দায়িত্ব নিয়েছিলেন তার প্রেমিক অনন্ত বর্মন। প্রায় কয়েক মাস আগে অনন্ত বর্মন তার প্রেমিকা লিপিকাকে দশ হাজার টাকা দামের মোবাইল দিয়েছিল বলে জানিয়েছেন অনন্তর বৌদি।

এতকিছু করার পরও রবিবার অনন্ত জানতে পারে লিপিকার সাথে অন্য কারো বিয়ে ঠিক হয়ে গেছে। তাছাড়াও আরও অবাক হওয়ার বিষয় হলো এই বিয়েতে লিপিকা রাজি হয়ে গেছে। এরপর তিনি নিজের মাথা ঠিক না রাখতে পেরে সোমবার দীপিকার বাড়ির সামনে ধরনায় বসেন। এদিন বিকেল এরপর তার শরীর অসুস্থ হয়ে পড়ে। এই সবকিছু দেখে তার প্রেমিকা দীপিকা নিজেকে সামলাতে না পেরে অবশেষে তার সাথে বিয়ে করতে রাজি হয়ে যায়। দুই পরিবারের উপস্থিতে সেইদিন সন্ধ্যেবেলায় লিপিকা ও অনন্তের বিয়ে হয়।

সোমবার অনন্তের সকাল থেকে ধরনা দেওয়ার ঘটনাটি সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। প্রতিবেশী দেশ বাংলাদেশেও অনন্ত ও লিপিকার প্রেমের কথা ছড়িয়ে যায়। ধুপগুড়ি গ্রামের এমন কোন লোক নেই যে এই ঘটনাটি জানেন না। এরপর সন্ধ্যেবেলায় অনন্ত- লিপিকার বিয়ের খবরটি ও খুব তাড়াতাড়ি ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। বহু মানুষ লিপিকা-অনন্তের বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন এবং তাদের আশীর্বাদ করেছেন।

Related Articles

Close