মূর্তি স্থাপন করে ভক্তরা করছেন পুজো, ছবি দেখা মাত্রাই ভক্তদের উদ্দেশ্যে অভিনেতা দিলেন এই বার্তা

কথাতেই বলে বিপদেই বন্ধুর পরিচয়৷ ২০২০ এর মহামারী যেন আমাদের সেটাই দেখাল৷ এই বছরটা সাধারণ মানুষের জীবনে ঝড়। মহামারীর কবলে গোটা বিশ্ব ত্রস্ত, সাহায্য চেয়ে গোটা বিশ্বে ওঠে হাহাকার। কাজ নেই, পেটে খাবার নেই, বাড়ি ফেরার টাকাটুকুও নেই৷ এই ভয়াবহ পরিস্থিতিতে যখন সরকার দিশেহারা সেই সময় হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিকদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বলিউড অভিনেতা সোনু সুদ। বলিউডের অনেক অভিনেতাই পাশে থেকেছেন, আর্থিক সাহায্য করেছেন, কিন্তু এইভাবে পথে নেমে নিজের সর্বস্ব দিয়ে অন্যের বিপদে ঝাঁপিয়ে পড়ার দৃষ্টান্ত বিরল।

 

 

সোনু সুদ একা দায়িত্ব নিয়ে সকলকে পৌঁছে দিয়েছিলেন বাড়িতে। বাস, ট্রেন এমনকি বিমানেও পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরার বন্দোবস্ত করেন তিনি৷শুধু পরিযায়ী শ্রমিক নয়, সাধারণ মানুষের বিপদেও একমাত্র আশা ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছেন সোনু সুদ৷ বিপদে মানুষের ঈশ্বরকে ডাকতেন না, সোনু সুদ এর সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের বিপদের কথা জানাতেন। চাকরির আবেদন থেকে শুরু করে, বাড়ি ফেরার ওষুধ, সবই মিলছিল মুহূর্তে। ভেঙ্গে পড়া মানুষ নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখছিলেন।

‘আম্মা রসোই’ এর মতো এবার দিল্লিতে খুলছে “গম্ভীর রসোই”, ২৪ ডিসেম্বর থেকে ১ টাকায় মিলবে ভরপেট খাবার

 

বেকার সন্তান তার বাবার অপারেশনের টাকা পেয়েছিল, এক গরীব চাষী তার মেয়ের লেখাপড়ার বন্দোবস্ত করতে পেরেছিলেন সোনু সুদ এর জন্য৷ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে তার ভক্তের সংখ্যা। কোন মা তার ছেলেকে বাড়িতে ফিরে পেয়ে পুজো করতেন অভিনেতার, কেউ আবার তার নামে দোকান খুলে পাতেন নতুন ব্যবসা। সেই থেকে শুরু। গোটা দেশজুড়ে অগণিত ভক্ত ছড়িয়ে পড়ে।

এমনকি নিজের সম্পত্তি বন্ধক রেখেও সোনু সুদ চড়া সুদে ব্যাঙ্ক থেকে লোন নিয়েছেন মানুষের পাশে থাকবেন বলে৷ ইতিমধ্যেই বিহারে সোনু সুদের একটি মূর্তি স্থাপিত হয়েছে৷ এবার তেলেঙ্গানার সিড্ডিপেট জেলার দুব্বা টান্ডা গ্রামে মূর্তি স্থাপন করা হল। এই মন্দিরে দক্ষিণী আদব কায়দায় পুজো করা হয় সোনু সুদ এর । এই ছবি ও খবর ছড়িয়ে পড়ার পরই নজরে আসে সোনুর। মুহূর্তে সোশ্যাল মিডিয়ার পাতায় তিনি লেখেন “এ আমার প্রাপ্য নয়।” তার এই মন্তব্যে আবারও প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটিজেনরা ।