এটিএম থেকে টাকা তোলার বিষয়ে বড়োসড়ো বদল আনল ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক, এটিএম থাকলে অবশ্যই..

গ্রাহকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া ফের কিছু নিয়মে বদল আনলেন। তবে  নিখরচায় লেনদেনের সর্বোচ্চ সীমা বাড়ায়নি রিজার্ভ ব্যাংক। বর্তমানে নিয়ম অনুসারে নিজের ব্যাংক এবং অন্যান্য ব্যাংক মিলিয়ে মাসে মোটা 8 টির বেশি লেনদেন হলে তার জন্য আলাদা চার্জ দিতে হয় গ্রাহককে। এর মধ্যে নিজের ব্যাংক থেকে সর্বোচ্চ 5 টি এবং অন্যান্য ব্যাংক থেকে সর্বোচ্চ 3 টি করে নিখরচায় লেনদেন করতে পারে গ্রাহকরা।

তবে সমস্যা বিষয় হলো অনেক সময় এটিএম এ গিয়ে টাকা তোলার সময় বোতাম টিপলেও টাকা বের হয় না। এটি হয় এটিএম এর যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বা এটিএম এ টাকা না থাকলে। এক্ষেত্রে গ্রাহকদের নিখরচায় লেনদেনের তালিকাভুক্ত করা হয়। ফলে ব্যাংক বা এটিএম এর যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে গ্রাহকরা তাদের  নিখরচায় লেনদেনের সীমা কমে যায়। এবারে এই নিয়মের কিছু পরিবর্তন আনল রিজার্ভ ব্যাংক। কি কি নিয়মে পরিবর্তন হয়েছে তা আমরা নিচে উল্লেখ করা হলো-

প্রথমত, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বা এটিএম মেশিনে টাকা না থাকলে লেনদেন অসম্পূর্ণ বা বাতিল হলে সেটিকে নিখরচায় লেনদেনে তালিকাভুক্ত করতে পারবেনা ব্যাংক। কারণ ওই লেনদেনকে বৈধ ‘এটিএম ট্রানজেকশন’ হিসেবে ধরা হবে না।
দ্বিতীয়ত, এতদিন পর্যন্ত ‘ব্যালান্স ইনকোয়ারি’ বা ‘একাউন্ট ব্যালেন্স’ চেক করার নিখরচায় লেনদেনে তালিকাভুক্ত করত ব্যাংক। কিন্তু এই নতুন নিয়ম অনুসারে এবার থেকে গ্রাহকরা যত বার খুশি নিজের একাউন্ট ব্যালেন্স চেক করতে পারেন তার জন্য কোনো এক্সট্রা ট্রানজেকশন কাউন্ট করা হবে না।
তৃতীয়ত, এটিএম থেকে কোন গ্রাহক যদি চেক বইয়ের জন্য আবেদন করতো তাহলে সেটিকে নিখরচায় লেনদেনে তালিকাভুক্ত করা হত। এবার থেকে এর জন্য কোন ট্রানজেকশন ফি দিতে হবে না গ্রাহকদের।

চতুর্থ, এটিএম থেকে কর প্রদান করলে সেটিকেউ লেনদেন হিসেবে গণ্য করা হতো। এবার থেকে এর জন্য কোন লেনদেন কাউন্ট করতে পারবেনা ব্যাংক।
পঞ্চম, কোন গ্রাহক যদি এটিএম থেকে অন্য ব্যাংকে ফান্ড ট্রান্সফার করে টাকা পাঠাতো তাহলে সেটিকে লেনদেন হিসেবে গণ্য করতো ব্যাংক। কিন্তু এই নতুন নিয়ম অনুসারে সেটিকে আর লেনদেন হিসেবে গণ্য করা হবে না।
অর্থাৎ মূলকথা হলো, এটিএম থেকে টাকা তোলা ছাড়া আর কোন কিছু লেনদেনকে বৈধ লেনদেন হিসেবে ধরবে না ব্যাংক।

Related Articles

Close