প্লে স্টোরে হাজির নতুন “আধার অ্যাপ”, নতুন আধার অ্যাপে থাকতে চলেছে এই পরিষেবাগুলি….

2016 সালে আধার কার্ড (Aadhar Card) দেশে নিয়ে আসার পর থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অনেক বিরোধিতা করেছিলেন বিরোধী দলগুলি।এতে বাদ যাননি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও। তবে এই বিরোধিতা বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। কিছুসময়ের পরই সকল মানুষের কাছে অন্যান্য পরিচয় পত্র গুলির মতো আধার কার্ড ও দেশের মানুষের কাছে পরিচয় পত্র হিসাবে গণ্য হতে থাকে। তবে শুধু তাই নয় আজ যেকোনো কাজের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হচ্ছে আধার কার্ডের।

তাই সবার কাছে আধার কার্ড থাকাটা অত্যন্ত জরুরী হয়ে উঠেছে। তবে যেমন কী আমরা সকলেই জানি সব জিনিস সবসময়ই পুরো পারফেক্ট হতে পারে না যেমনটা হার্ডকপি থাকলে হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকত আধার কার্ডের,আর যেহেতু আধার কার্ডের মাধ্যমে লিঙ্ক করা হতো যাবতীয় ব্যাংক ডিটেলস গুলি তাই যেকোনো ব্যক্তির আধার কার্ড হারিয়ে গেলে বড় সমস্যার সম্মুখীন হতে হতো তাকে।

তাই দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চলছিল যাতে একটা সফট কপি তৈরি করা সম্ভব হয় আর যেটিকে সকল মানুষেরা তাদের নিজের কাছে রাখতে পারে। তবে এবার যে তথ্যটি বেরিয়ে আসছে সেটি সাধারণ মানুষের কাছে একটা খুশির খবর হতে পারে। অনেক দীর্ঘদিনের চেষ্টার পর এবার অবশেষে এসে গেল সেই নতুন আধার অ্যাপ এখানে আধার সংক্রান্ত সব পরিচয় পাওয়া যাবে এখন আপনার স্মার্টফোনের মাধ্যমে। আধারে থাকা সব ডাটা অর্থাৎ নাম, জন্মতারিখ, লিঙ্গ, ঠিকানা , ছবি ও মোবাইল নম্বর থাকবে এই অ্যাপের মধ্যেই।

এই অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে গুগল প্লে স্টোর এর মাধ্যমে।মোবাইল নম্বর দিয়ে রেজিস্টার করে নিতে পারবেন আপনি এই আধার অ্যাপটিকে। এর আগে যদি আপনি এম আধার (m Aadhar)অ্যাপটি ডাউনলোড করে থেকেছেন তাহলে সেটিকে ডিলিট করে দিতে হবে তার বদলে এখন আপনাকে ইনস্টল করতে হবে newmAadhar অ্যাপটিকে। তবে এখন প্রশ্ন এই অ্যাপসের মাধ্যমে আপনি কী কী সুবিধা পেতে পারবেন।তবে সর্বপ্রথম বলে রাখি এই অ্যাপটি যদি আপনি একবার ডাউনলোড করে নেন তাহলে আপনার আধার কার্ডের হার্ডকপি নিয়ে গোটায় ঘুরে বেড়াতে হবে না, তার বদলে নিউ এম আধার অ্যাপ ডাউনলোড করলেই আপনার আধার সংক্রান্ত কাজ হয়ে যাবে।

আর আপনি এই অ্যাপসের মাধ্যমে পেয়ে যাবেন আধার সংক্রান্ত সব সার্ভিস। এই অ্যাপের মাধ্যমে আপনার যখন ইচ্ছা আপনার বায়োমেট্রিক ‘লক’ বা ‘আনলক’ করতে পারবেন। যদি আপনার মোবাইলে আধার ওটিপি না গিয়ে থাকে, তাহলে Time-based OTP বা TOTP পেতে পারেন, যার বৈধতা থাকবে 30 সেকেন্ড পর্যন্ত। তার সাথে সাথে আপনার আধার ডিটেলস QR code-এর মাধ্যমে কারও সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন। আর তাতে, ডেটা লিক হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে। এছাড়া আপনি মেসেজ বা ইমেলের মাধ্যমে সরাসরি eKYC পাঠাতে পারবেন।

Related Articles

Close