“বাবা কা বুলডোজার”-সেলফি নেবার জন্য উপচে পড়ছে মানুষের ভিড়, যোগীও বললেন সব জায়গায় পাঠিয়ে দাও একটা একটা করে

তিন ধাপের নির্বাচন হতে চলেছে পূর্ব উত্তর প্রদেশে। নির্বাচন যতই এগোচ্ছে, ততই প্রচারের জন্য বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করা হচ্ছে। সুলতানপুরে নির্বাচনী সভা চলাকালীন অনেক বুলডোজার পৌঁছেছে সিএম যোগীর সভায়, যার গায়ে লেখা ছিল ‘বাবার বুলডোজার’।

সুলতানপুরের জনসভাস্থলে চারটি নতুন খনন যন্ত্র অর্থাৎ বুলডোজার ছিল, যার উপরে যোগীর ছবি দেওয়া ব্যানার লাগানো ছিল। এই ব্যানারে লেখা ছিল বাবার বুলডোজার। কাউকে এর সঙ্গে নিজস্বী তুলে ইন্টারনেট মিডিয়ায় শেয়ার করতে, কাউকে আবার এর ছবি তুলতে দেখা যায়। সিএম যোগী ভাষণ দেওয়ার সময় বলেছন যে, এমন একটি ব্যবস্থা করা হয়েছে, যার মাধ্যমে হাইওয়েও তৈরি করা যাবে, আবার এবং মাফিয়াদেরও বিনাশ করা যাবে।

সিএম যোগী, শুক্রবার কটকা খানপুরে বিজেপি প্রার্থীদের সমর্থনে আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য রেখেছিলেন। তিনি বলেন যে, রাজ্যের মানুষ ২০১৭ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে ডবল ইঞ্জিন সরকারকে কাজ করতে দেখেছে। আগে এসপির সরকার ছিল। যেখানে দাঙ্গা হতো, মেয়েরা স্কুলে যেতে পারতো না, সেখানে আজ রাজ্যের মানুষের নিরাপত্তা রক্ষার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। বিরোধী দলের নেতারা একসময় পকেটে পিস্তল নিয়ে রামভক্তদের উপর গুলি চালাতেন, আজ তারাই গদা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। যোগী বলেন যে, মন্দির নির্মাণ দ্রুত হওয়া উচিত, এর জন্য বিজেপি সরকার গঠন করা প্রয়োজন। ২০১৭ সালের আগে, এসপি বিএসপি নেতা, মাফিয়াদের বাড়িতে টাকা যেত, এখন সেই টাকায় হাইওয়ে, এক্সপ্রেসওয়ে, বাড়ি,শৌচালয় ও ​​মেডিকেল কলেজ তৈরি হচ্ছে।

বিএসপিকে নিশানা করে সিএম যোগী বলেন, হাতির পেট অনেক বড়, সরকারের সদিচ্ছার অভাব ছিল। এসপিকে কটাক্ষ করে যোগী বলেন, কবরস্থানের সীমানা ছাড়া সমাজবাদী পার্টি কোনো কাজ বলতে পারে না। বিজেপি যখন পাঁচটি আসনের সবকটিতে জিতবে, তখনই শক্তিশালী সরকার গঠন হবে, তাই তিনি সকলকে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দানের জন্য আহ্বান জানান।