প্রতিটি ভারতবাসী ঘুরে দাঁড়ানোর ক্ষমতা রাখে,চন্দ্রযান 2 এর অভিযান প্রসঙ্গে আত্মবিশ্বাসী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

চন্দ্রযান 2 এ প্রথমবার উৎক্ষেপণে বাঁধা এলেও শেষ মেষ সফলভাবেই উৎক্ষেপণ করা হয়েছে চন্দ্রযান-2 এর। চন্দ্রযানে কিছু ত্রুটির কারণে প্রথমবার উৎক্ষেপণে বাঁধা পেয়েছিল চন্দ্রযান 2 তবে সেই যান্ত্রিক ত্রুটি সারিয়ে এক সপ্তার মধ্যে সাফল্য পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা।এই দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি চন্দ্রযান 2 এর উৎক্ষেপণের কথা বলতে গিয়ে নিজের উপলব্ধির কথা তুলে ধরেন তিনি বলেন প্রতিটি ভারতবাসীর সেই একই ভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর ক্ষমতা রাখে। গতকাল রবিবার দিন মন কি বাত এ চন্দ্রযান টু এর বিষয়ে আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

এই দিন তিনি প্রশংসায় ভরিয়ে দেন ইসরোর বিজ্ঞানীদের। যেভাবে তারা এক সপ্তাহের মধ্যে রকেটের গোলযোগ সারিয়ে সফলভাবে রকেটের উৎক্ষেপণ সফল করেছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। এ বিষয়ে তিনি বলেন, “যেভাবে রেকর্ড সময়ের মধ্যে যান্ত্রিক সমস্যাগুলির সমাধান করে বিজ্ঞানীরা এই অসাধ্য সাধন করলেন, তার সাক্ষী আজ গোটা বিশ্ব। আমাদের এ বিষয়ে গর্ব করা উচিত”।

তবে এখানেই শেষ নয় তিনি আরো বলেন যেভাবে বিজ্ঞানীরা তাদের অদম্য জেদ ও নিষ্ঠা থেকে এই কাজটি সম্পন্ন করেছেন তা থেকে অনেকেরই অনেক কিছু শেখার আছে। তিনি বলেন জীবনের চলার পথে কখনো কিছু সামরিক বাধা আসে কিন্তু আমাদের মনে রাখা প্রয়োজন সে বাধা কাটিয়ে উঠার ক্ষমতা কিন্তু আমাদের নিজের মধ্যেই আছে।এছাড়া তিনি চন্দ্রযান 2 এর সম্বন্ধে বলেন চাঁদের বিষয়ে আমাদের জ্ঞানের
পরিধি বাড়াতে সাহায্য করবে এই চন্দ্রযান-2। যেমন কী আপনারা সকলেই জানেন গত 15 জুলাই
চন্দ্রযান 2 এর উৎক্ষেপণের কথা ছিল কিন্তু উৎক্ষেপণের দিন 56 মিনিট 24 সেকেন্ড আগে কিছু যান্ত্রিক ত্রুটি ধরা পড়ে এই যানে। রকেটের একটি ভাল্ব থেকে লিক হচ্ছিলো হিলিয়াম গ্যাস। তাই ঝুঁকি নেননি বিজ্ঞানীরা।

ওই দিন উৎক্ষেপণ বাতিল করা হয়।আর তারপরই শুরু করা হয় ওই যান্ত্রিক ত্রুটি মেরামতের কাজ। ওভার টাইম কাজ করে ত্রুটি সারিয়ে তোলেন ইসরোর বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদরা। তারপর 22 জুলাই দুপুর 2 টো 43 মিনিটে চন্দ্রযান 2 পাড়ি দেয় চাঁদের পথে। ভারতের দ্বিতীয় চন্দ্রযানকে নিয়ে উড়ে যায় বাহুবলী। এর মধ্যে দুই বার সফলভাবে কক্ষপথের পরিধিও বাড়িয়েছে চন্দ্রযান-2। এর পরে আবার 29 জুলাই জ্বলে উঠবে চন্দ্রযান-2-এর ইঞ্জিন। ভারতীয় সময়ে দুপুর 2 টা 30 মিনিট থেকে 3 টে 30 মিনিটের মধ্যে হবে কক্ষপথের পরিবর্তন।