KBC থেকে ৫ কোটি টাকা জিতেও অন্ধকারে চলে গিয়েছিল সুশীল কুমারের জীবন, অবশেষে

সুশীল কুমার নামটা খুব একটা জনপ্রিয় না হলেও কোন বনেগা করোরপতির (Kaun Banega Crorepati) যারা নিয়মিত দর্শক তারা অনেকেই এই মানুষটিকে চেনেন। ২০১১ সালে সর্বপ্রথম এই গেম শো তে সুশীল কুমার জেতেন ৫ কোটি টাকা। কিন্তু সেই টাকা জিতে গুরুতর সমস্যায় পড়েন সুশীল কুমার। রাতারাতি বদলে যায় তার জীবন। যার ফল খুব একটা ভালো হয়নি তার জীবনে। গেম শো এর মাধ্যমে তার জীবনের কাহিনী অনেকটা চর্চিত হয়েছিল।কোন বনেগা করোরপতির সিজন ১৩ তে ৫ কোটি টাকা জিতেছেন সুশীল কুমার। টাকা জেতার পর নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেছেন সেখানে তিনি লিখেছেন, এই টাকা পাবার পর ভালোর থেকে খারাপ হয়েছে বেশি। বিপুল পরিমাণ অর্থ আমার জীবনে এক কালো অন্ধকার সময় এনে দিয়েছিল। বিপুল পরিমাণ অর্থ তার জীবনে সর্বনাশ ডেকে এনেছিল। তিনি মদের নেশায় ডুবে গেছিলেন। সাথে সব রকম ব্যবসায় একের পর এক ব্যবসায় ব্যর্থ হয়েছেন তিনি স্ত্রী এর সাথে সম্পর্কে বিচ্ছেদ হয়ে গেছে তার।

২০১৫ সাল থেকে ২০১৬ সাল তার জীবনের সব থেকে অন্ধকার সময় এবং কেবিসি জয় তার জীবনের সবথেকে অভিশাপ ডেকে এনেছিল। রাতারাতি তিনি হয়ে উঠেছিলেন তারকা তার জন্য অতিথি হিসাবে তাকে প্রায় দিন যেতে হত বিভিন্ন জায়গায়। সেখানে গিয়ে সংবাদ মাধ্যমের সামনে তাকে নানা রকম প্রশ্নের মুখোমুখি পড়তে হত। সংবাদ মাধ্যমে উত্তর দেবার জন্য তিনি সেই টাকা লাগান বিভিন্ন ব্যবসা।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত একটা ব্যবসাও সফল হয় নি তার। দিনের পর দিন হতাশা গ্রাস করতে থাকে তাকে। শেষ পর্যন্ত মদের নেশা তাকে গ্রাস করে সেখান থেকে তার স্ত্রীর সাথেও সম্পর্কে ধরে ভাঙন। সেখান থেকে তিনি মুম্বই আসেন ছবি করবে বলে কিন্তু ইন্ডাস্ট্রি থেকে তাকে ছবি দিয়ে নয় টেলিভিশন এর কাজ দিয়ে নির্দেশনা শুরু করতে বলা হয়।

এর পর তার পকেট আস্তে আস্তে ফাঁকা হতে শুরু করে। তখন ইন্ডাস্ট্রি যে তার জন্য নয় সেই বিষয়ে জ্ঞান হয় তার। তারপর তিনি ইন্ডাস্ট্রি ছেড়ে দেন। সেখান থেকে তিনি আবারও শিক্ষকতায় ফিরে যান। তিনি মনে করেন তারকা হবার থেকে একজন সাধারণ মানুষ ও মানুষের মত মানুষ হওয়া উচিত। এখন তিনি একজন স্বনামধন্য শিক্ষক। ২০১৬ সালের পর থেকে তার জীবনে পরিবর্তন আসে তিনি ধূমপান মদ্যপান সব কিছু ছেড়ে এখন একটি সুস্থ জীবন যাপন করছেন।