পাকিস্তানকে ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’ দেওয়া বন্ধ করল ভারত

কাশ্মীর ইস্যুকে নিয়ে যেভাবে পাকিস্তান বাড়াবাড়ি শুরু করেছে তাতে দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কে বিভেদ দেখা দিয়েছে, আর সেই জন্য এবার ভারতও পাকিস্তানের সাথে কোন প্রকার সম্পর্ক রাখতে চাইছে না। এবার পাকিস্তানের সঙ্গে ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’ আদান- প্রদান করার চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নিল ভারত। গতকাল বুধবার দিন এ কথা জানিয়েছেন ‘ইন্দাস ওয়াটার’-এর ভারতের কমিশনার পি কে সাক্সেনা। আপনাদের সুবিধার্থে বলে রাখি,1989 সালে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল।

আর তারপর থেকে সীমান্তে নানান জঙ্গীকার্যকলাপে পাকিস্তানে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে হাত থাকা সত্বেও প্রতিবছরই সৌজন্যের খাতিরে এই চুক্তিকে পুনর্নবীকরণ করা হত। তবে এইবার ভারত সরকার কোন রকম সৌজন্যের পথে হাঁটতে চাইছে না তাই এবার এই চুক্তিকে পুরোপুরিভাবে রদ করতে চাইছে ভারত সরকার। তবে এখন অনেকের মনে এই প্রশ্ন আসতে পারে এই ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’ আদান- প্রদান করা চুক্তিটি আসলে কি?

আর এর দরুন পাকিস্তান কি সুবিধা পেত ভারতের কাছ থেকে?এই চুক্তি অনুযায়ী যদি কোন প্রকার জল অতিরিক্ত পরিমাণে বেড়ে যায় সেই সংক্রান্ত তথ্য পাকিস্তানকে জানিয়ে দেয় ভারত, যার ফলে পাকিস্তান সরকার আসন্ন বন্যার পরিস্থিতি সামাল দিতে আগে থেকে প্রস্তুতি নিতে পারে। কৃষি আর সেচের ক্ষেত্রে জলের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তার উপর বন্যায় কৃষি বা জল বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্পে যে ক্ষয়ক্ষতি হয়, তা ভারতের থেকে পাওয়া ‘হাইড্রোলজিক্যাল ডেটা’র ভিত্তিতে অনেকটাই সামাল দেওয়া সম্ভব হত পাকিস্তানের পক্ষে। তাই এই চুক্তি যদি পুনরায় না করা হয় তাহলে এর ফলে পাকিস্তানি বড় সমস্যায় পড়তে পারে এর কোন সন্দেহ থাকবে না।তবে গতকাল হাইড্রলজিক্যাল ডাটা আদান-প্রদানের চুক্তি পুনর্বহাল না করার কথা জনালেও এর সঙ্গে সিন্ধু জল চুক্তির কোনও সম্পর্কে নেই বলে জানিয়েছেন ভারতের ‘কমিশনার অব ইন্দাস ওয়াটার’ পি কে সাক্সেনা।

তবে এখন দেখার বিষয় এই চুক্তি যদি বাতিল করে দেওয়া হয় তাহলে পাকিস্তানের একাংশ পুরোপুরি ভাবে বন্যাতে ডুবে যেতে পারে যেকোনো আপৎকালীন পরিস্থিতিতে।

Related Articles

Close