বৈদ্যুতিন নির্মাতারা ভারতে বিনিয়োগ করবে প্রায় 11 লক্ষ কোটি ডলার, দেশে তৈরি হবে 12 লক্ষ কর্মসংস্থান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ..

গতকাল শনিবার দিন কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ জানান সরকার এবার নতুন প্রোডাকশন লিংক ইন্সেন্টিভস (PLI) প্রকল্পের আওতায় আগামী 5 বছরের মধ্যে পেগাট্রন, স্যামসাং, লাভা এবং ডিকসন সহ বৈদ্যুতিন নির্মাতারা প্রায় 11 লক্ষ কোটি ডলার বেশি মোবাইল ডিভাইস এবং আনুষঙ্গিক উৎপাদন করার জন্য প্রস্তাব দিয়েছেন। আর ইতিমধ্যে বৈদ্যুতিন উৎপাদন বৃদ্ধি করার লক্ষ্য নিয়ে পাঁচটি আন্তর্জাতিক কোম্পানির যাদের মধ্যে রয়েছে স্যামসাং, ফক্সকন হান হাই, রাইজিং স্টার, উইন এবং পেগাট্রন সহ আরো 22 টি সংস্থা ইতিমধ্যে এই PLI প্রকল্পের আওতায় আবেদন জানিয়েছেন।

তিনি জানান এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মোবাইল ফোন উৎপাদনকারী সংস্থাগুলি কেবল 15 হাজার ডলার বা তারও বেশি বিভাগে এর আবেদন করেছে। তাদের মধ্যে রয়েছে আইফোন এর ঠিকাদারি নির্মাতা ফক্সকন হান হাই, উইন এবং পেগাট্রনের নাম। এক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী আরও জানান যে এই যে সংস্থাগুলি প্রস্তাবগুলি জমা করেছে তার দরুন দেশে প্রায় 12 লক্ষ কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে যাদের মধ্যে তিন লক্ষ প্রত্যক্ষ এবং 9 লক্ষ অপ্রত্যক্ষ কর্মস্থান।এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এর বক্তব্য মোবাইল ফোনের ক্ষেত্রে দেশীয় মূল্যসংযোজন বর্তমান 15-20% থেকে 35-40% ও বৈদ্যুতিন উৎপাদন গুলির জন্য 45-50% হয়ে দাঁড়াবে।

এক্ষেত্রে স্যামসাংয়ের 23% এবং অ্যাপেলের 37% একসাথে মোবাইল ফোনের বিশ্বব্যাপী বিক্রয় উপার্জনের প্রায় 60 শতাংশ এই প্রকল্পটিতে দেশে তাদের উৎপাদনের ভীত বহু গুণে বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাহলে এই প্রােডাকশন লিঙ্কযুক্ত উদ্দীপনা প্রকল্প কী ? আর কী রয়েছে এর গুরুত্ব? পিএলআই প্রকল্পটি ভিত্তি বর্ষের ( FY2019-20 ) পরবর্তী পাঁচ বছর সময়কালে ভারতে উৎপাদিত লক্ষ্যমাত্রার অধীনস্থ পণ্যগুলির বিক্রয় 4 % থেকে 6 % বৃদ্ধি করতে উৎসাহ তৈরি করবে । আর এক্ষেত্রে এই প্রকল্পটি 31.07.2020 পর্যন্ত আবেদন জমা করার জন্য উন্মুক্ত ছিল । 01.08.2020 থেকে এই প্রকল্পের আওতায় সহায়তা প্রযােজ্য হবে।