ঘরে বসেই আয় করুন লক্ষ লক্ষ টাকা, প্রয়োজন পড়বে না কোনো সরকারি চাকরির! কীভাবে জানুন

বর্তমান পরিস্থিতিতে আর্থিক সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে গোটা দেশ ।করোনাকালীন পরিস্থিতি অর্থনৈতিক পরিকাঠামো সার্বিক ভাবে বিপর্যস্ত হয়েছে অন্যান্য দেশ গুলির মত ভারতবর্ষেও অর্থনৈতিক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে।সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মীরা আর্থিক সংকটের মুখে পড়ছে । বিশেষ করে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থায় কর্মী ছাঁটাই হচ্ছে ফলে দেশের বেকারত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত দু’বছরে বিপুল সংখ্যক মানুষ কর্মহীন হয়েছে । ভারতের মতো বিপুল জনসংখ্যার সম্পন্ন দেশে বেকারত্ব একটি বড় সমস্যা ।

বর্তমান পরিস্থিতিতে একদিকে যেমন কর্মসংস্থানের অভাব করছে অন্যদিকে কমছে চাকরির নিরাপত্তা । যেখানে দিনদিন বেকারত্ব বাড়ছে মানুষ স্বাভাবিকভাবেই স্বনির্ভর ব্যবসার প্রতি ঝুঁকছে । কিন্তু উপযুক্ত মূলধনের অভাবে অনেকেই স্বনির্ভর ব্যবসা করতে পারছেন না । কিন্তু বর্তমানে এমন কয়েকটি কাজের সন্ধান আছে যাতে আপনি অল্প টাকা বিনিয়োগ করে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।অনেক ক্ষেত্রে কোনো রকম ইনভেস্টমেন্ট ছাড়াই এ ব্যবসা গুলি আপনি শুরু করতে পারবেন।

আপনার যদি উপযুক্ত শিক্ষকতা যোগ্যতা থাকে এবং আপনার হাতে সময় থাকে তাহলে আপনি এই ছোট ব্যবসা বা কাজগুলি করে বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। উপযুক্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে আপনি এই ব্যবসাকে আরো বৃদ্ধি ঘটাতে পারবেন ।এছাড়া আপনি আরও অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিতে পারবেন। ফলে এতদিন যারা পারিবারিক কারণে কাজের চাপ এবং পারিবারিক লোকের দেখাশোনার জন্য কোন রকম কাজ করে উঠতে পারেননি তারা ঘরে বসেই অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

Advertisements

করোনাকালীন পরিস্থিতি সমস্ত স্কুল-কলেজ এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির বিগত দুই বছর ধরে বন্ধ হয়ে রয়েছে । ফলে সাম্প্রতিককালে অনলাইন কোচিং এর প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছে। আপনার হাতে যদি উপযুক্ত সময় থাকে এবং আগ্রহ থাকে তাহলে আপনি বাড়িতে বসেই এলাকার বাচ্চাদের অনলাইন প্রাইভেট টিউশন নিতে পারেন। পরবর্তীকালে আপনি ভবিষ্যতে এটি কে নিয়ে আরও এগোতে পারেন। পরে ছাত্র সংখ্যা বাড়লে আপনি একটি কোচিং ইনস্টিটিউশন খুলতে পারেন। সেখানে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের শিক্ষক রেখে ব্যবসা বৃদ্ধি ঘটাতে পারবেন। যেকোনো ছোট সরকারি চাকরি থেকে এই ব্যবসায় আপনি বেশি উপার্জন করতে পারবেন।

Advertisements

বর্তমান ডিজিটাল ইন্ডিয়ার যুগে ব্লগিং একটি ভালো উপার্জনের মাধ্যম ।এই ব্যবসার জন্য আপনাকে সর্ব বিষয়ে পারদর্শী না হলেও চলবে যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষতাই এই ব্যবসার জন্য যথেষ্ট । নিজের দক্ষতা এবং ইন্টারনেট কে কেন্দ্র করে আপনি একটি ব্লগ চ্যানেল খুলতে পারেন। এছাড়া আপনি যে কোনো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ব্লগিংয়ের মাধ্যমে পার্ট টাইম জব করতে পারেন। এর থেকে যথেষ্ট ভাল আয়ের সম্ভাবনা আছে।

এছাড়া আপনি ইউটিউবে ব্লগ ভিডিও আপলোড করেও অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বর্তমান সময়ে ইউটিউবে ব্লগ চ্যানেলগুলি যথেষ্ট জনপ্রিয়। ব্লগিং চ্যানেলের মাধ্যমে আপনি যথেষ্ট জনপ্রিয় হতে পারেন । এছাড়া ব্লগ প্লাটফর্মে রিডার অনুযায়ী লেখককে অর্থ প্রদান করে থাকে। এছাড়াও আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইনার দের সাথে কথা বলে মোবাইল অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট তৈরীর কাজ শুরু করতে পারেন।

বর্তমানে আরেকটি ভালো উপার্জনের পথ হল অনলাইন ব্যবসা ।অত্যন্ত কম টাকার মাধ্যমে আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন । প্রথমে আপনাকে মার্কেট স্টাডি করতে হবে। ফ্লিপকার্ট অ্যামাজন মত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি পণ্য বিক্রি করে এই বিজনেস শুরু করতে পারেন । তবে এর জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম মার্কেট স্টাডি করতে হবে । জানতে হবে কোন পণ্যের চাহিদা সবথেকে বেশি ।এরপর সেই পণ্য অল্প পরিমাণ টাকায় তুলে তা এই ওয়েবসাইটগুলির মাধ্যমে ব্যবসা শুরু করতে পারেন ।এর থেকে আপনি বেশ ভালই লাভ করতে পারবেন । প্রথমে অল্প পুঁজি দিয়ে ব্যবসা শুরু করে ধীরে ধীরে বাড়াতে পারেন আপনার বিনিয়োগ।

প্লেসমেন্ট সার্ভিসের মাধ্যমে আপনি কাজ শুরু করতে পারেন।বর্তমানে সমস্ত কোম্পানি এবং ইনস্টিটিউশন গুলি প্লেসমেন্ট এজেন্সি মাধ্যমে নিয়োগ করে থাকে । সুইপার , সিকিউরিটি গার্ড, হেলপার ইত্যাদি টেকনিক্যাল লোক মূলত এই ধরনের কোনো না কোনো নিয়োগকারী সংস্থার মাধ্যমে নিয়োগ করা হয়। আপনি বাড়িতে বসেই এই ধরনের একটি এজেন্সি খুলতে পারেন। পরবর্তীকালে আপনি বড় সংস্থার সঙ্গে জুটি বাঁধতে পারেন এবং আপনার আন্ডারে অনেক লোককে এজেন্সিতে কর্মী হিসেবে নিয়োগ করতে পারবেন। প্রত্যেকটি বড় শহরে এই ধরনের এজেন্সি চাহিদা আছে।

বর্তমান সময়ে ভাষা অনুবাদকের চাহিদাও খুব বেশি।আপনার যদি হিন্দি ,ইংরেজি অথবা অন্য কোন বিদেশি ভাষার উপর দক্ষতা থাকে তাহলে সহজেই আপনি ভাষা অনুবাদককে নিজের পেশা হিসেবে নির্বাচন করতে পারেন। ট্রান্সলেটর পেশাকে কেন্দ্র করে আপনি ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। মূলত এটি একটি পার্টটাইম কাজ। আজকের যুগে অনলাইন অনুবাদকের চাহিদা খুবই বেশি হাজার হাজার পৃষ্ঠার বই এক ভাষা থেকে অন্য ভাষায় অনুবাদ করে আপনি প্রচুর টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আর সব থেকে বড় কথা হল এই ব্যবসার জন্য আপনাকে কোন রকম টাকা ইনভেস্ট করতে হচ্ছে না।