ঘূর্ণিঝড় আমফানের ফলে ভয়ঙ্কর ক্ষতির আশঙ্কা বাংলায়, ‘ওয়ার্নিং’ দিল কেন্দ্র..

যত সময় বাড়ছে তত ধীরে ধীরে নিজের শক্তি বাড়িয়ে ক্রমশ ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করছে সুপার সাইক্লোন আমফান। এগিয়ে এসেছে সুপার সাইক্লোন আর বেশি দেরি নেই দিঘা থেকে মাত্র কয়েক শ’ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে এই সুপার সাইক্লোন আমফান। আর এই ঘূর্ণিঝড়ের ফলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের অঞ্চলগুলিতে, একথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রের তরফ থেকেও। কেন্দ্রের তরফ থেকে এ বিষয়ে গতকাল সোমবার দিন সন্ধ্যেবেলায় সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মৌসিন ভবনের তরফ থেকে সোমবার দিন সন্ধ্যেবেলা আপডেট দেওয়া হয় এবং জানানো হয় দিঘা থেকে প্রায় 890 কিলোমিটার দূরে ও পারাদ্বীপ থেকে প্রায় 700 কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে আপাতত এই ঘূর্ণিঝড়। তার সাথে সাথে একথাও জানানো হয় যত সময় বাড়বে ততই ঘূর্ণিঝড় আরো ভয়ঙ্কর রূপ নিবে শুধু তাই নয় এই ঘূর্ণিঝড় পশ্চিমবঙ্গে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করতে পারে। তাছাড়া আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের তরফ থেকে যে খবর বেরিয়ে আসছে সেখানে জানতে পারা যাচ্ছে দীঘা ও সুন্দরবনের কাছে অতিক্রান্ত করার সময় এই সুপার সাইক্লোনের তীব্রতা আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে আর সেই সময় এই ঘূর্ণি ঝড়ের গতিবেগ থাকবে 165 থেকে 175 কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায়, বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে ।

তাই মনে করা হচ্ছে আগামী 20 ই মে রাজ্যের আবহাওয়া অত্যন্ত খারাপ থাকবে।শুধু তাই নয় এই ঝড়ের গতিবেগ এতটাই থাকবে যে যার ফলে ভেঙ্গে যাবে বড় বড় গাছ-গাছালি, তার সাথে সাথে ঘর-বাড়ির ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে রেল ট্রাকে বা ইলেকট্রনিক লাইনেও এর ফলে ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হতে পারে এর দরুন। প্রসঙ্গত এই ঝড়ের কারণে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার উপকূলবর্তী অঞ্চলগুলিতে।যার দরুন ইতিমধ্যেই দীঘা সহ পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় একাধিক উপকূল অঞ্চলে জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে একাধিক সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে।

তার পাশাপাশি দিঘাতে তৈরি করা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলার দল।তবে এই সুপার সাইক্লোন ঘূর্ণিঝড় এর গতিপথ সাগরদ্বীপে হলেও এর ব্যাপক প্রভাব পড়বে রাজ্যের উপকূলবর্তী অঞ্চল গুলিতেও।আর আশঙ্কা করা যাচ্ছে এই ঘূর্ণিঝড় আগামী বুধবার দিন দুপুর থেকে আছড়ে পড়তে পারে রাজ্যজুড়ে। যার ফলে রাজ্যের একাধিক জায়গাতে দেখা যাবে ব্যাপক ঝড়-বৃষ্টি। অন্যদিকে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার জেলাশাসক জানিয়েছেন আবহাওয়া দপ্তর এর তরফ থেকে এরকম এক ঘূর্ণিঝড় বিষয়ে সর্তকতা জারি হওয়ার পর থেকে, তাদের তরফ থেকে গোটা জেলাতে একাধিক সতর্কবার্তা জানানো হয়েছে।

সমুদ্র উপকূল এলাকায় মানুষ জনকে দূরত্বে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে তার সাথে সাথে অতি আবশ্যকীয় বিভাগগুলি যেমন বিদ্যুৎ পানীয় জল এগুলিকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে, তার সাথে সাথে পরিস্থিতির দিকে নজর রাখা হচ্ছে।

More Stories
করোনা ভাইরাসের জেরে শুধু আমেরিকাতেই মৃত্যু হতে পারে তিন লাখ মানুষের, তথ্য প্রকাশ হোয়াইট হাউসের…