কোভিড ভ্যাকসিনের জন্য ফোন এলে ভুলেও শেয়ার করবেন না OTP

প্রযুক্তি যত উন্নত হচ্ছে ততই নিত্যনতুন জালিয়াতির ফাঁদ পাতছেন প্রতারকরা।   প্রতিদিনই তারা নতুন নতুন ভাবে সাধারণ মানুষকে প্রতারণা করছেন।  ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করছেন।  তাই একটু অসাবধান হলেই নানারকম হয়রানির শিকার হতে হবে।  এমনকি সর্বস্বান্ত হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবেন না।

এমনিতেই প্রত্যেকদিন এটিএম জালিয়াতি বেড়ে গেছে। ব্যাঙ্ক ফ্রড ইত্যাদির মতো ঘটনা বেড়েই চলেছে।  কেওয়াইসি চেয়ে  বোকা বানানো হচ্ছে আবার কখনো ব্যাংকের আধিকারিক সেজে এটিএম কার্ডের ইনফর্মেশন নিয়ে নেওয়া হচ্ছে।  তাই ব্যাংকের তরফ থেকেও বারবার সাবধান করা হচ্ছে৷  কিন্তু এবার আরও এক নতুন ফাঁদ।   টিকাকরণ কে কেন্দ্র করে জালিয়াতি শুরু হয়েছে।

তাই সাবধান করা হচ্ছে,  যদি আপনার ফোনে করোনা ভ্যাকসিনের জন্য আধার নম্বর এবং ওটিপি যাচাইয়ের কোন কল আসে তাহলে ভুলেও সেই ওটিপি আপনি কাউকে শেয়ার করবেন না।  প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো ফ্যাক্ট চেক করে সাম্প্রতিক পোস্ট করেছেন।  সাধারণ নাগরিকদের ফাঁদে ফেলতে এই নতুন কৌশল অবলম্বন করেছে প্রতারকরা।  নতুনভাবে জালিয়াতি করছে করণা ভ্যাকসিনের লোভ দেখিয়ে।

তারা ড্রাগ কন্ট্রোল এর তরফ থেকে ফোন করছেন বলে জানাচ্ছেন।  তারপর সেখান প্রবীণ নাগরিকদের ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য তাদের ব্যক্তিগত বিবরণ জানতে চাইছেন৷  আধার নম্বর এবং ফোনে যাওয়া ওটিপি জেনে নিচ্ছেন৷ মোবাইল নম্বর প্রাপ্ত ওটিপি কোড তারা শেয়ার করে দিলেই তাদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন প্রতারকরা।

নতুন অ্যাপ লঞ্চ করল কেন্দ্র সরকার, এবার থেকে হাতের মুঠোয় থাকবে বাজেটের সমস্ত খুঁটিনাটি বিষয়

টাকা দিলে ভ্যাকসিন তাড়াতাড়ি পাওয়া যাবে এমনটাও বলা হচ্ছে।   তাই সাধারণ নাগরিককে টুইট করে সাবধান করা হয়েছে।  যেন এই ধরনের কোন ফোন কল থেকে গ্রাহক নাগরিক প্রতারণার শিকার না হয়৷  ড্রাগ কন্ট্রোল ইন্ডিয়া নামে কোন লাইসেন্সপ্রাপ্ত সংস্থা নেই।  এক্ষেত্রে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া  অনুমোদিত একটি সংস্থা রয়েছে।  যা দেশে ওষুধ এবং চিকিৎসা ডিভাইসগুলোকে লাইসেন্স দেয়৷  কিন্তু এই সংস্থার তরফে এই ধরনের কোনো নাগরিককে ফোন  করা হবে না এবং করণা টিকাকরণ সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য সরকারি নির্দেশিকা মেনে হবে তার জন্য সরকারি ওয়েবসাইট দেখতে হবে৷