জীবনে সুখ-সমৃদ্ধি বজায় রাখতে লক্ষ্মীপুজোয় ভুলেও করবেন না এই কাজগুলি! নাহলে…

দূর্গাপুজো কটতে না কাটতেই বাঙালির আর একটি বড় উংসব কোজগরী লক্ষী পুজো চলে এলো। এই পুজো প্রায় সমস্ত হিন্দু বাড়িতে আয়োজন করা হয়। হিন্দু শাস্ত্র মতে লক্ষী ধনসম্পত্তির দেবী। প্রত্যেকটি পরিবারে যাতে সারা বছর আর্থিক ধন-সম্পত্তি বজায় থাকে তাই সকল হিন্দু বাড়িতে মা লক্ষ্মীর আরাধনা করা হয়। কিন্তু শুধুমাত্র পুজো করলে তা মিলবে না। পূজার সাথে সাথে কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে হবে। আসুন আমরা জেনে নেই সেই নিয়ম গুলি কি কি।

1. আমাদের একটি প্রচলিত প্রবাদ রয়েছে লক্ষী চঞ্চলা। হিন্দু শাস্ত্র মতে কারো বাড়িতে নাকি মা লক্ষ্মী বেশিদিন থাকতে চায়না। কিন্তু আবার স্বভাবে তিনি খুবই ধীর স্থির। বেশী আওয়াজ পছন্দ করেন না মা লক্ষ্মী। তাই লক্ষ্মীপুজোয় কাঁসার ঘন্টা একদমই বাজাবেন না।
2. লক্ষী পূজোয় কাঁসার অথবা ইস্টিলের বাসন ব্যবহার করুন। লোহার বাসন একদমই ব্যবহার করবেন না। কারণ লোহার বাসন দিয়ে একমাত্র অলক্ষ্মীপুজোর কাজ করা হয়।

3. লক্ষীপুজোর উপাচারের মধ্যে আপনি তুলসী পাতা রাখেন? যদি আপনার উত্তর হ্যাঁ হয় তাহলে এই কাজটি দ্বিতীয় ভুল করেও করবেন না।
4. লক্ষ্মীকে কোনদিনও সাদা ফুল দিয়ে পুজো করবে না যদি করতে হয় তাহলে লাল কিংবা গোলাপি ফুল দিয়ে করুন। দেখবেন তাতে মা লক্ষ্মী প্রসন্ন হবেন। আপনার গৃহস্থ জীবন সুখ ও শান্তিতে ভরে যাবে।
5. পুজোতে আমরা প্রদীপ এবং ধূপ দুটোই ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু যে কোন জায়গায় ধূপ এবং প্রদীপ দিলে চলবে না। ধূপ এবং প্রদীপ প্রতিমার ডানদিকে সব সময় দিতে হয় তবেই আপনার বাড়িতে সুখ-সমৃদ্ধি সারাবছর বজায় থাকবে।

6. ভুল করেও সাদা অথবা কালো বস্ত্রের উপর মূর্তি প্রতিমা রাখবেন না। সাদা অথবা কালো বাদে যেকোনো রঙের বস্ত্র দিলেই চলবে।
7. পুজোর সময় আপনি যে বস্ত্রটি পারবেন সেটি লাল বা হলুদ এর মধ্যে রয়েছে তো? যদি লাল বা হলুদের মধ্যে না হয় তাহলে সেটি না পরাই ভালো। কারন সারা বছর সুখ সমৃদ্ধি বজায় রাখতে হলে লাল বা হলুদ রঙের বস্ত্র প্রতি হবে।
জীবনে চলার পথে কতইনা বাধা আসবে তবে মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদ থাকলে সকল বানায় পার হয়ে যাবে। জীবনে চলার পথ হয়ে উঠবে মসৃণ।তাই তো কোজাগরী লক্ষ্মীপুজো এই কাজগুলি ভুলেও করবেন না।

Related Articles

Close