করোনা সংক্রমণ রুখতে কড়া পদক্ষেপ! মঙ্গলবার মাঝ রাত থেকে বন্ধ হয়ে যাবে আন্তঃরাজ্য বিমান পরিষেবা…

সমস্ত দেশ জুড়ে এখন একটাই আতঙ্ক করোনা।দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুরও সংখ্যা সংক্রমণ রুখতে দেশের 80 টি জেলাকে লকডাউনের পরামর্শ দিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার যার জেরে আজ বিকেল থেকে আগামী 31 শে মার্চ পর্যন্ত একাধিক রাজ্য, একাধিক জেলাকে নকডাউন করার ঘোষণা করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।অন্যদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও সেই একই পথে হেঁটে আজ বিকেল 4 টা থেকে আগামী 27 শে মার্চ রাত বারোটা পর্যন্ত রাজ্যের একাধিক জায়গাতে নকডাউন এর ঘোষণা করেছেন।

লকডাউন হলে এলাকায় কোন বাস, ট্যাক্সি ও গণপরিবহন চলবে না। চলবে শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবার গাড়ির যেমন এম্বুলেন্স। এছাড়া বন্ধ থাকবে সমস্ত রকম কারখানা এবং দোকানপাট।বিদেশ থেকে আসা সমস্ত যাত্রীদের বাধ্যতামূলকভাবে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। তবে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে এবার অবশেষে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি মেনে নেওয়া হলো। যেভাবে রাজ্যে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে তার জেরে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ বিকেল বেলায় প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি কে একটি চিঠি লিখেন যেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করেন যাতে করোনা সংক্রমণ রুখতে আন্তঃরাজ্যে বিমান পরিষেবাকে বন্ধ করে দেয়া হয়।

অবশেষে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি মেনে নিয়ে আগামী চব্বিশে মার্চ মাঝরাত থেকে দেশের ভিতরে যাত্রীবাহী বিমান উড়বে না বলে জানিয়ে দেওয়া হল কেন্দ্রের তরফ থেকে তবে এক্ষেত্রে পণ্যবাহী বিমান পরিষেবা অব্যাহত থাকবে। আরো বলে রাখি প্রসঙ্গত দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল রবিবার দিন দিল্লি বিমানবন্দরে আন্তঃরাজ্য বিমানের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে দিয়েছিলেন কিন্তু তারপরই অসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রক সেই সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেয় এবং আবার 22 শে মার্চ থেকে আন্তর্জাতিক বিমান ওঠানামা বন্ধ করা হয়েছে।

তবে যেমনটা আমরা জানি এর আগেই অবশ্য ট্রেন, আন্তঃরাজ্য বাস পরিষেবা কে বন্ধ রাখা হয়েছিল কিন্তু আন্তঃরাজ্য বিমান পরিষেবা কে বন্ধ রাখা হয়নি ফলে বিভিন্ন রাজ্য থেকে কর্মরত অনেকেই বাড়ি ফিরছেন শুধু তাই নয় আবার অন্য রাজ্যের আত্মীয়রাও ভয়ে চলে আসছেন, ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা অনেকখানি বেড়ে যাচ্ছে এরাজ্যে। তাই এবার আন্তর্জাতিক বিমান এর পর আন্তঃরাজ্য বিমান পরিষেবাকে বন্ধ করার কথা জানালেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চিঠিতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীকে যা লিখেন সেটি হল আন্তঃরাজ্য বিমান পরিষেবা বন্ধ না করেই লকডাউন ও কোয়ারেন্টাইন প্রক্রিয়াতে বিঘ্ন ঘটছে।

যার ফলে রাজ্যগুলিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে হিমশিম খেয়ে যাচ্ছি তাই আমার একান্ত অনুরোধ যত দ্রুত সম্ভব পশ্চিমবঙ্গগামী সমস্ত বিমানগুলোকে বাতিল করতে নির্দেশিকা জারি করুন। তবে এই ভাইরাসের সংক্রমণের উৎস বন্ধ করা সম্ভব হবে এবং এর দরুনই রাজ্যে পুরোপুরি ভাবে লকডাউন পালন করা সম্ভব হবে। যেহেতু দেশজুড়ে বিমান পরিষেবা বন্ধ করার অধিকার একমাত্র কেন্দ্র সরকারের হাতে রয়েছে সেহেতু মুখ্যমন্ত্রীর তরফ থেকে এমন আবেদন করা হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে।