আগেও একটি দল ছেড়ে এসেছিলেন, আরেকটিতে যাবেন’, দিলীপ ঘোষের বিস্ফোরক মন্তব্যে আবারও বাড়ছে জল্পনা

বঙ্গ রাজনীতিকে চলছে সুর বদলের পালা। ভোটের আগে আমরা বঙ্গ রাজনীতিতে দেখেছিলাম বেসুর হাওয়া। তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন বহু নেতা মন্ত্রীরা। ভোট পরবর্তী সময়ে এর বিপরীত চিত্র আমরা দেখতে পাচ্ছি। সোনালী গুগোল গলায় এখন উঠেছে সুর বদলের আওয়াজ। এরই মধ্যে আবার অসুস্থ মুকুল রায়ের স্ত্রীকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখতে যাওয়ার পরেই জল্পনার সৃষ্টি হয়েছে-‘তবে কি এবার গেরুয়া শিবির ছেড়ে ফের অন্য দলে পা বাড়বেন বহু নেতা!’

এই সমস্ত জল্পনা নিয়ে এবার এক সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খুললেন দিলীপ ঘোষ। দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন যে ভারতবর্ষ হল গণতান্ত্রিক দেশ যে কোনো নেতাই নিজেরর মত অনুসারে চলতে পারেন। একটি দল ছেড়ে এসেছিলেন আবার ফিরতে পারেন অন্য দলে। গায়ের জোরে কোনো নেতাকে ধরে রাখা যাবে না। বহু নেতাই বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন তার মধ্যে এক আধ জন চলে যেতেই পারেন।

বুধবার সন্ধ্যে ৬টা ৪৫ মিনিট নাগাদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় মুকুল রায়ের অসুস্থ স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছান। সেখানে উপস্থিত ছিলেন মুকুল রায়ের পুত্র শুভ্রাংশু রায়। সেখানে গিয়ে চিকিৎসকদের কাছে থেকে মুকুল রায়ের স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার খবর নেন অভিষেক। সৌজন্য বিনিময় ঘটে শুভ্রাংশু রায়ের সাথে।

এরপরই সংবাদমাধ্যমের কাছে মুকুল পুত্র জানিয়েছেন ‘ মা অত্যন্ত অসুস্থ। BJP-তে কোন ভূমিকায়? মুখে কুলুপ শিশিরের এই অবস্থায় তাঁকে দেখতে এসেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ধরনের সৌজন্যের রাজনীতিক উদাহরণ আগে রয়েছে কিনা আমার জানা নেই এবং ভবিষ্যতেও দেখা যাবে কিনা জানি না। আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে কৃতজ্ঞ।’

মুকুল রায়ের অসুস্থ স্ত্রীকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দেখতে যাওয়ার পরে জল্পনা উঠতে শুরু করে যে তৃণমূল থেকে বিদায় হেভিওয়েট নেতারা আবার তাহলে ঘাসফুল শিবিরে ফিরতে চলেছেন। এই প্রসঙ্গে আবার দিলীপ ঘোষের মন্তব্যটিও জল্পনা বাড়িয়েছে।