জুনিয়র ডাক্তারদের ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগানের ভয়ে এনআরএসে যাননি মমতা, খোঁচা রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপের…

নীলরতন সরকারি হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তার কে মারধরের ঘটনা কে ঘিরে কর্মবিরতিতে লেগে পড়েছেন সকল চিকিৎসকেরা। আর তারপর এই ঘটনাকে ঘিরে ছড়িয়েছিল চাঞ্চল্যের। এমনকি এ কথা শুনতে পাওয়া যাচ্ছিল যে এন আর এস হাসপাতালে মুখ্যমন্ত্রী নিজে যেতে পারেন পরিস্থিতি সামাল দিতে। তবে যদিও তা হয়নি, আর তারপরই এ বিষয় নিয়ে খোঁচা দিতে বাদ গেলেন না রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এই দিন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দাবি করেন যে “জয় শ্রী রাম” শোনার ভয়েই বিক্ষোভ স্থানে যায়নি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এনআরএস হাসপাতালে মুখ্যমন্ত্রী যেতে পারেন এমন এক কথা শোনা যাচ্ছিল তবে কোনো আনুষ্ঠানিক ভাবে সরকারের তরফ থেকে বা তৃণমূল, রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এরকম কিছু ঘোষণা করা হয়নি।কিন্তু এই সুযোগকে হাতছাড়া করলেন না বিজেপি রাজ্য সভাপতি। এই দিন তিনি বলেন মুখ্যমন্ত্রীর যাওয়ার মুখ নেই সেখানে কারণ ওখানে গেলে তাকে পড়তে হবে বিক্ষোভের মুখে। সেখানে থাকা জুনিয়ার ডাক্তারেরা “জয় শ্রী রাম” বলে স্বাগত জানাতেন। এরপর হেলিকপ্টারে নবান্নে যাবেন”।

তবে এখানেই থেমে যান নি দিলীপ ঘোষ তিনি আরো বলেন যে, সমস্ত সরকারি হাসপাতাল এখন বন্ধ বেসরকারি হাসপাতালে পরিষেবা ব্যাহত রয়েছে। প্রতিদিন হাসপাতালের লক্ষ লক্ষ রোগী আসেন।যাদের মধ্যে অনেকে ক্যান্সার আক্রান্ত! কি অবস্থায় আছেন তারা!ডাক্তারেরা পরিষেবা দিচ্ছেন না কেন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা,তারা বাধ্য হয়েছেন আজ। তারা বিপন্ন একাধিক হাসপাতালে ঘটছে এমন একই ঘটনা।  বিকেলে পাঁঁচটা রোগী মারা গেল, আর রাতে এনআরএসে অবাধে ঢুকে পড়ল দুষ্কৃতীরা। হাসপাতাল মারপিট করার জায়গা?”

তবে এখানেই শেষ নয় এদিন দিলীপ ঘোষ মমতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করে বলেন একটি বিশেষ সম্প্রদায় যাদের দুধ খান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, তারাই বর্তমানে সন্দেশখালিতে খুন করেছে। আর গতবছর তারই কলকাতা মেডিকেলের হাসপাতালে হামলা করেছে।খালি মমতাকে ভোট দেওয়ার অধিকার তারা আইন-শৃঙ্খলা বাইরে গিয়ে দেশের আইন-শৃঙ্খলা কে বিপন্ন করেছে এক বিশেষ সম্প্রদায়ের লোকেরা।শুধু তাই নয় তারা বিজেপির কর্মীদেরও আক্রমণ করছে।
গত এক বছরে একটাও এফআইআর দেখলাম না। কেউ সাজা পেল না”।