এযেনো সিনেমায় ঘটার মতো ঘটনা, ট্রাফিক আইন ভঙ্গ করায় এবার নিজের স্কুটির দামের চেয়েও বেশি পরিমাণে দিতে হলো জরিমানা।

পয়লা সেপ্টেম্বরের পর থেকে একাধিক ট্রাফিক আইন পরিবর্তন হওয়ায় সাধারণ মানুষের জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলেছে। শুধু তাই নয় এই ট্রাফিক আইন পরিবর্তনের কারণে অনেক সাধারণ মানুষকে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। বিগত দিনে গুরগ্রামে এক যুবককে নিয়ে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। তাকে একাধিক ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের অপরাধে পুলিশ ২৩,০০০ টাকা জরিমানা করেছে।সংবাদ মাধ্যম থেকে জানা যাচ্ছে, ওই যুবকের নাম দীনেশ মদন তিনি দিল্লির গীতা কলোনির গুরু গ্রামের বাসিন্দা।

দীনেশ মোহন নামক ওই যুবককে ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের অপরাধে মোট ২৩,০০০ টাকা জরিমানা করা হয়। সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে দীনেশকে, ড্রাইভিং লাইসেন্স না থাকার জন্য ৫,০০০ টাকা, রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট না থাকার জন্য ৫,০০০ টাকা, ইন্সুরেন্স না থাকার জন্য ২,০০০ টাকা, পলিউশন সার্টিফিকেট না থাকার জন্য ১০,০০০ টাকা এবং হেলমেট পড়ে গাড়ি না চালানোর জন্য ১,০০০ টাকা, জরিমানা করা হয়েছে। গীতা কলোনির রোডে সবমিলিয়ে ২৩,০০০ টাকার চালান দীনেশ এর হাতে ট্রাফিক পুলিশ ধরিয়ে দেন।

 

তিনি তার সব দোষ মেনে নিয়েছেন কিন্তু তিনি দাবি করে জানিয়েছেন, যে তিনি মাত্র ১৫,০০০ টাকা দিয়ে পুরনো স্কুটি ক্রয় করেছিলেন। এবং এবার তাকে ২৩,০০০ হাজার টাকা জরিমানা দিতে হবে। তাহলে সরকারের কাছে তার একটাই প্রশ্ন, এইসব আইনি পরিবর্তনগুলি মানুষের দুর্ঘটনাকে এড়ানোর জন্য করা হয়েছে কিন্তু সাধারণ মানুষের মাসিক আয় ১০,০০০ টাকা হয় না সেখানে সে কিভাবে ২৩,০০০ টাকা জরিমানা দেবে ? দীনেশ এর বিপক্ষে করা জরিমানা কিছুটা কমানোর জন্য আবেদন করবেন বলে তিনি জানিয়েছেন। তবে এই বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে কোনরকম বক্তব্য বা মন্তব্য উঠে আসেনি। সুতরাং , এটি পরিষ্কার যে সেপ্টেম্বরের পর থেকে পরিবর্তন হওয়া ট্রাফিক আইনে সাধারণ মানুষের জীবনে অনেকটাই প্রভাব ফেলেছে এবং মানুষ আরো সতর্ক সহকারে গাড়ি চালাবে। আর সমস্ত দরকারি নথি সহ গাড়ি না চালালে সাধারণ মানুষকে বড় জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে।

https://twitter.com/ARanganathan72/status/1168901672585891841?s=19

আরও পড়ুন :