দিন ঘোষণা ফেব্রুয়ারিতেই, এপ্রিলে শেষ প্রক্রিয়া! ইঙ্গিত উপ-নির্বাচন কমিশনারের

এপ্রিলেই শেষ হবে রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন।  রাজ্য সফরে এসে প্রশাসনিক কর্তাদের এই ইঙ্গিত দিয়েছেন ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার।  এখন থেকেই নির্বাচনের শান্তি শৃঙ্খলা  সংগঠিত করতে প্রশাসনিক কর্তাদের উঠে পড়ে লাগার পরামর্শ দিয়েছেন।

কোনরকম বিশৃঙ্খলা ও গাফিলতি বরদাশ্ত করা হবে না।  শান্তিপূর্ণ নির্বাচন করতে সমস্ত রকম সম্ভাব্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে কমিশন।  জানুয়ারির শেষ দিকে আসতে পারে কমিশনের ফুল বেঞ্চ।   বুধবার শহরের একটি পাঁচতারা হোটেলে সমস্ত পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার।  এর পরবর্তীকালে তিনি জেলা শব্দের সঙ্গে বৈঠক করবেন।  সিবিএসসি বোর্ডের পরীক্ষার ঘোষণা হয়ে গিয়েছে।  তাই নির্বাচন কমিশনার বলছেন পশ্চিমবঙ্গ কেরালা তামিলনাড়ু সব জায়গায় নির্বাচন প্রক্রিয়া এপ্রিলের শেষ সপ্তাহের মধ্যেই সম্পন্ন করে দিতে চায় কমিশন।  তাই যত সম্ভব দ্রুত যত দ্রুত সম্ভব জামিন অযোগ্য গ্রেফতারি পরোয়ানা কার্যকর করার নির্দেশ দেন।

তিনি আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি খতিয়ে দেখার কথা বলেছেন।  প্রশাসনিক কর্তাদের পুলিশের উদ্দেশ্যে জানিয়েছেন, ” এলাকা শান্তিপূর্ণ রাখা আপনাদের দায়িত্ব।  তা কিভাবে রাখবেন তা আপনারাই ঠিক করবেন।  কোন রকম বিশৃঙ্খলা বরদাশ্ত করা হবে না।  ” কোন রকম অভিযোগ যেন কারোর দিকে না থাকে।  কর্তব্যে গাফিলতি  হচ্ছে মনে করলেও শোকজ করতে পারে কমিশন।

বুধবারই রাজ্যের জেলা শাসক পুলিশ সুপারদের নিয়ে বৈঠক করেছেন।  রিপোর্ট চেয়েছেন  ইলেকশন কমিশনার সুদীপ্ত জৈন। বৈঠকে একাধিক নির্দেশ দিয়েছেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার। বিশেষত কোন এলাকাগুলিতে এখনো  অশান্তি রয়েছে সেখানে ১০০% শান্তির পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে বলে গতকালকের বৈঠকে নির্দেশ দিয়েছে। শুধু তাই নয় গত কালকের বৈঠকে কার্যত এক প্রকার জানিয়ে দেওয়া হয়েছে কর্তব্যে গাফিলতির অভিযোগ এলে এবার আর কোন শো কজ নয়,সরাসরি অপসারণের পদ্ধতিতেই হাঁটবে নির্বাচন কমিশন।

 

মিলছে বড়োসড়ো বিদ্রোহের ইঙ্গিত! হরিয়ানার ৬০ গ্রামে বিজেপি নেতাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ

নির্বাচন কাজের সঙ্গে যুক্ত থাকা যেকোনো আধিকারিকদের বিরুদ্ধে এই ধরনের পদক্ষেপ নেবে বলে গতকালকের বৈঠকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।  বলে সূত্র মারফত খবর। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিবসহ একাধিক দপ্তরের সচিব দের নিয়ে বৈঠক করছেন ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার। মনে করা হচ্ছে রাজ্যে ফুল বেঞ্চ আসার আগে বৃহস্পতিবার এর বৈঠক অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিশেষত বৃহস্পতিবার এর বৈঠকে স্কুল শিক্ষা সচিব,স্বাস্থ্য সচিব,পরিবহন সচিব সহ একাধিক দপ্তরের সচিব বৈঠকের উপস্থিতি যথেষ্ঠ তাৎপর্যপূর্ণ।

কারণ বিধানসভা ভোটের প্রস্তুতি খুঁটিনাটি নিয়েই দিল্লি ফিরে যেতে চান ডেপুটি ইলেকশন কমিশনার। আগামী সপ্তাহে রাজ্যে কমিশনের ফুলবেনট আসার আগে তাই আর প্রস্তুতিতে কোন খামতি রাখত চায়না নির্বাচন কমিশন। সূত্রের খবর, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি রাজ্যে বিধানসভা ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।