বুধবার 26 মে সকালের দিকেই বাংলায় আঁছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড় যশ, একাধিক জেলাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা

আগামী বুধবার 26 মে সকালের দিকেই বাংলায় আসতে পারে ঘূর্ণিঝড় যশ।মঙ্গলবার থেকে উপকূলবর্তী এলাকায়  মাঝারি বৃষ্টিপাত শুরু হয়ে যাবে বলে আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে।ফাঁকা এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে , সেই সঙ্গে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে , জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।

আবহাওয়া দপ্তরের তরফে আরও জানানো হয়েছে,  আন্দামানের উত্তর এবং পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর এর কাছে 22 মে অর্থাৎ আগামীকাল একটি নিম্নচাপ তৈরি হতে চলেছে । এই নিম্নচাপটি ক্রমাগত শক্তি বৃদ্ধি করবে এবং তা ঘূর্ণিঝড়ের আকার নেবে 24 মে’র মধ্যে।  তারপর সেই ঘূর্ণিঝড় ক্রমাগত ছুটে আসবে উড়িষ্যা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উপকূলের দিকে।  নিম্নচাপ তৈরি হওয়া থেকে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হওয়া এবং তা স্থলভূমিতে আছড়ে পড়া পর্যন্ত বিভিন্ন সময় বাতাসের গতিবেগ পরিবর্তন হতে পারে এবং তার ওপর ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নির্ভর করবে।

বাতাসের গতিবেগ যত বেশি থাকবে , ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা তত বেশি থাকবে বলেই জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।  23 তারিখ আন্দামান ও বঙ্গোপসাগরের ঘণ্টায় 45 কিলোমিটার বেগে বাতাস বইতে পারে 24 তারিখ নিম্নচাপ শক্তি বৃদ্ধি করবে তখন বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় 62 থেকে 85 কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে ।

ঘরে বসে মাত্র ২ মিনিটেই করতে পারবেন করোনা টেস্ট, রিপোর্ট পাবেন মাএ 15 মিনিটে, বিস্তারিত জানতে

বঙ্গোপসাগরের উত্তরে এবং ওড়িশা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের কাছে মঙ্গলবার বাতাসের গতি কিছুটা কমলেও বুধবার থেকেই ফের বাতাসের গতিবেগ বাড়তে শুরু করবে,  জানিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর । ইতিমধ্যেই মৎস্যজীবীদের সতর্ক করা হয়েছে।  যারা সমুদ্রের মাছ ধরতে গিয়েছেন তাদের ফিরে আসার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে 23 শে মে এর মধ্যে । 24 তারিখ থেকে সমুদ্রে মৎস্য শিকার করতে যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।